ফ্রি-ফায়ার গেম নিয়ে বিরোধে খুন করা হয় কিশোর সিফাতকে: পুলিশ

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: বগুড়ায় কিশোর সিফাত হোসেনকে (১৩) ফ্রি-ফায়ার গেম নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে খুন করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। তারই বন্ধু ১৩ বছর বয়সী আরেক কিশোর এ খুনের ঘটনা ঘটায়।

এ ঘটনায় জড়িত কিশোরকে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ঢাকার মনিপুরীপাড়া এলাকা থেকে মঙ্গলবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে। একই সঙ্গে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ধারালো চাপাতি ও জ্যাকেট উদ্ধার করেছে ডিবি পুলিশ।

হত্যাকাণ্ডে জড়িত কিশোর অপ্রাপ্ত বয়সের হওয়ায় তার নাম পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। সে বগুড়া শহরের একটি বেসরকারি বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।

হত্যার শিকার কিশোর সিফাত বগুড়া শহরের নূরানীমোড় এলাকার শাহ আলমের ছেলে।

আজ বুধবার দুপুর ১২টার দিকে এক সংবাদ সম্মেলনে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী।

পুলিশ সুপার বলেন, মোবাইল গেম ‘ফ্রি ফায়ার’ খেলাকে কেন্দ্র করে এই হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়েছে। ওই গেমের আইডি ও পাসওয়ার্ড না দেওয়ার কারণে সিফাতকে নৃশংসভাবে খুন করে তারই কিশোর বন্ধু।

পুলিশ সুপার জানান, সিফাতের কাছ থেকে কৌশলে তার কিশোর বন্ধু ফ্রি ফায়ার গেমের আইডি ও পাসওয়ার্ড নেয়। সিফাত ওই গেম তার কিশোর বন্ধুর কাছে বারবার ফেরত চাইলে সে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। পরবর্তীতে অন্য কেয়কজন বন্ধুর সহায়তায় সিফাত ওই গেম আইডি ফেরত নেয়। গত ২৫ ডিসেম্বর সিফাত তার বোনের মুঠোফোন ঠিক করার জন্য বাহিরে আসে। এ সময় হত্যাকারী ওই কিশোর বন্ধু তাকে নিজ দাদার বাড়ি বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার নিশ্চিন্তপুর নিয়ে যায়। ওইদিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে ওই স্থানে এক বাঁশ বাগানে সিফাতকে নিয়ে গিয়ে প্রথমে গলায় ধারালো চাপাতি দিয়ে আঘাত করে ওই কিশোর বন্ধু। সিফাত এ সময় মাটিতে পড়ে গেলে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলা কেটে ও বাম হাতের রগ কেটে হত্যা করে।

হত্যার পরেরদিন পুলিশ লোকমুখে খবর পেয়ে শিবগঞ্জ উপজেলার নিশ্চিতপুর থেকে সিফাতের লাশ উদ্ধার করে। পরে বিষয়টি নিয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হলে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। এক পর্যায়ে গতকাল রাজধানীর মনিপুরীপাড়া থেকে ১৩ বছর বয়সী আরেক কিশোরকে করা হয়।