চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হলো বুয়েট প্রশাসনের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের বৈঠক

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

আবরার ফাহাদ হত্যার বিচারসহ ১০ দফা দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৫টায় ওই দাবিগুলো নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়ামে প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকে বসেন শিক্ষার্থীরা; যা রাত ৮টায় শেষ হয়। কিন্তু চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত ছাড়াই ওই বৈঠক শেষ হয়।

বৈঠকে প্রশাসন দলীয় ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের ঘোষণা ও ১৯ জনকে সাময়িক বহিষ্কারের আশ্বাস দেয় শিক্ষার্থীদের। তবে এর ওপর আস্থা রাখতে পারছেন না আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। তারা বলেন, হলগুলোতে এখনও দলীয় নেতাকর্মী রয়েছে। ১৯ জন সাময়িক বহিষ্কার হলেও তাদের স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়নি। এছাড়া সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধের ঘোষণা হলেও আবারও যে শুরু হবে না তার নিশ্চয়তা তারা পাচ্ছেন না। এ কারণে আগামী ১৪ অক্টোবর ভর্তি পরীক্ষা না নেওয়ার পক্ষে মত দেন তারা।

শিক্ষার্থীরা মনে করেন, ক্যাম্পাস এখনও অনিরাপদ। তাই ক্যাম্পাসে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে নতুনদের বিপদের মুখে ফেলতে চান না তারা। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চায় পরীক্ষা নিতে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ডিএসডব্লিউ পরিচালক ও শিক্ষক সমিতির সভাপতি জানান, স্থায়ী বহিষ্কার করা হলে পরে আদালতে হেরে যেতে হয়। এবার যেন হেরে যেতে না হয়, সেজন্য আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় তদন্ত কমিটি করেছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করবে।’

হলগুলো রাজনৈতিক নেতাদের দখলমুক্ত করার ব্যাপারে ডিএসডব্লিউ পরিচালক বলেন, ‘যাদের থাকার বৈধতা নেই, তাদের বের করে দেওয়া হবে। প্রয়োজনে আজকেই হলগুলোতে ক্লিনিং অভিযান হবে।’

এ সময় ভর্তি পরীক্ষাকে জিম্মি রেখে দাবি আদায়ের আন্দোলন না করার অনুরোধ জানান শিক্ষকরা।

তবে বৈঠক শেষ হলে আবারও স্লোগানসহ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনে জড়ো হন শিক্ষার্থীরা। রাত সাড়ে ৯টায় সেখানে সংবাদ সম্মেলনে তাদের সিদ্ধান্ত জানাবেন তারা।