চন্দনাইশে পিকআপ চালকের বস্তাবন্দি গলিত লাশ উদ্ধার

চন্দনাইশ থানা পুলিশের আরো একটি সফল অভিযান
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

চন্দনাইশ প্রতিনিধি: চন্দনাইশ থানা পুলিশের আরো একটি সফল অভিযান। ৫ ঘণ্টার মধ্যে নিখোঁজের তিনদিন পর মোঃ আরিফুল ইসলাম ড্রাইভার নামে এক যুবকের অর্ধগলিত বস্তাবন্দি লাশের রহস্য উদঘাটন, হত্যাকারী  মূল হোতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার ও হত্যাকারী ব্যবহৃত বিভিন্ন আলামত উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তার করা হয়েছে হত্যাকারী মূল হোতা মোঃ আজিজ (২২), দুই সহযোগী জোহার ও শুক্কুর।

মঙ্গলবার রাতে কক্সবাজারে অভিযান চালিয়ে হত্যাকারী জড়িত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাার মো. আজিজ (২২) কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী গ্রামের নুরুল আবছারের ছেলে। তবে চন্দনাইশ উপজেলা উত্তর হাশিমপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন।

এর আগে, মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে উপজেলার গাছবাড়িয়ায় একটি পুকুর পাড়ে ঝোপের ভেতর থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত আরিফুল ইসলাম (২৯) পেশায় পিকআপ চালক। তার বাড়ি চন্দনাইশ উপজেলার পূর্ব ছৈয়দাবাদের উত্তর হাশিমপুর এলাকায়।

চন্দনাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘গ্রেপ্তার আজিজ জানিয়েছে- সে এবং আরিফুল দু’জন বন্ধু। আরিফুল পিকআপ চালানোর পাশাপাশি ইটভাটার ইট বিক্রির টাকা সংগ্রহ করত। এজন্য তার কাছে সবসময় নগদ টাকা থাকত। সেই টাকার লোভে গত ২৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় আরিফুলকে ডেকে বাসায় নিয়ে আজিজ, জোহা ও শুক্কুরসহ কয়েকজন মিলে হত্যা করে। এরপর তার পা পাষ্টিকের রশি দিয়ে বেঁধে লাশ বস্তাবন্দি করে বাসার চারতলার ওপর থেকে ডোবায় ফেলে দেয়।’

ওসি জানান, আরিফুলের কাছ থেকে নেয়া নগদ ২৯ হাজার ৫০০ টাকা, তার জুতাসহ পোশাক আজিজের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া হত্যায় ব্যবহৃত ছোরাও উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার আজিজ ঘটনার দায় স্বীকার করে চট্টগ্রামের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন।