কেন ১৯ দিনের মাথায় নতুন মন্ত্রিপরিষদ সচিব?

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সচিব মাহবুব হোসেন। গতকাল মঙ্গলবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। ২০ দিনের ব্যবধানে প্রশাসনের শীর্ষতম পদে পরিবর্তন আনা হয়েছে। চাকরির মেয়াদ শেষ হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই অবসরে গেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব কবির বিন আনোয়ার। প্রশাসনের শীর্ষ এ পদে এত অল্প সময়ে পরিবর্তন আনায় নজির স্থাপিত হলো। ২০০২ সালে বিএনপি সরকারের আমলে ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী এক মাস দুই দিনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ সচিবের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

গত ১৫ ডিসেম্বর পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব থাকা অবস্থায় মন্ত্রিপরিষদ সচিবের দায়িত্ব পেয়েছিলেন কবির বিন আনোয়ার। গতকাল মঙ্গলবার ছিল তাঁর চাকরির স্বাভাবিক সময়। অর্থাৎ ৫৯ বছর বয়সের শেষ দিন। এই দিন সকালে তাঁকে অবসর দিয়ে নতুন মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব হোসেনকে নিয়োগ দেয় সরকার। বিকেলে মাহবুব হোসেন ২৪তম মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন।

মাহবুব হোসেনের স্বাভাবিক চাকরির বয়সও খুব বেশিদিন নেই। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর তাঁর ৫৯ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। এর পর দায়িত্ব পালন করতে হলে তাঁকে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেতে হবে। তা না হলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে মন্ত্রিপরিষদ সচিব পদে নতুন মুখ আসবে।

একই দলের নেতৃত্বে চলা গত দেড় দশকে নিয়োগপ্রাপ্ত একাধিক মন্ত্রিপরিষদ সচিব চাকরির স্বাভাবিক বয়স শেষে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেয়েছেন। কিন্তু সরকারের বিশেষ সাহচর্যের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচিত কবির বিন আনোয়ার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পাননি। তাই এটি গতকাল সচিবালয় এবং সচিবালয়ের বাইরে আলোচিত বিষয় ছিল। প্রশাসন সম্পর্কে আগ্রহী অনেকে এর পেছনে বিশেষ কারণ আছে কিনা জানার জন্য সচিবালয় বিটের সাংবাদিকদের ফোন করেছেন। আবার সচিবালয়ের গাড়িচালক থেকে সচিব পর্যন্ত অনেকে এত অল্প সময়ে কেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব বদল হলো, তা নিয়ে একে অন্যের কাছে জানার চেষ্টা করেছেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়-সংশ্নিষ্টরা বলছেন, কবির বিন আনোয়ার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পাবেন কিনা, তা নিয়ে এক ধরনের সন্দেহ ছিল। তবে বেশিরভাগ কর্মকর্তার ধারণা ছিল, তিনি চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পাবেন। কারণ তাঁর পূর্বসূরি খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামকে একাধিকবার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাঁর আগের মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেয়েছিলেন।

কবির বিন আনোয়ার ২০১৮ সালে জ্যেষ্ঠ সচিব হিসেবে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। এর আগে তিনি উপসচিব হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এবং অতিরিক্ত সচিব হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মহাপরিচালক (প্রশাসন) পদে কাজ করেছেন। এদিকে নতুন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেন জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগে সিনিয়র সচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছেন ২০২২ সালের ২ জানুয়ারি থেকে। এর আগে দুই বছর তিনি ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব। বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের অষ্টম ব্যাচের কর্মকর্তা মাহবুব হোসেন সরকারি চাকরিতে যোগ দেন ১৯৮৯ সালের ২০ ডিসেম্বর। চাকরিজীবনে বিভিন্ন সময়ে তিনি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, পরিকল্পনা কমিশন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার বিভাগে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর বাড়ি বরিশালের মুলাদী উপজেলায়।

মঙ্গলবার শেষ কর্মদিবসে কবির বিন আনোয়ার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমার সরকারি চাকরির মেয়াদ শেষ হয়েছে। এটা রুটিনমাফিক বিষয়। চুক্তিভিত্তিক হওয়া সুযোগের বিষয়। এখন যেটা হয়েছে, এটাই স্বাভাবিক ছিল। প্রধানমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সেটা বুঝেশুনে নিয়েছেন। সেই সিদ্ধান্তের প্রতি আমার সম্মান আছে। তবে পরে হয়তো অন্য কোনো ভালো জায়গায়ও আমাকে দেখতে পারেন।’

নতুন নিয়োগ পাওয়া মাহবুব হোসেন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সুদীর্ঘ চাকরিজীবনের শেষ প্রান্তে পৌঁছেছি। আমাকে মন্ত্রিপরিষদ সচিব পদে নিয়োগ দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। চাকরিজীবনে অর্জিত জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা দিয়ে সরকারের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করব।’
এদিকে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের নতুন সচিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন খায়েরুজ্জামান মজুমদার। মঙ্গলবার এ ব্যাপারে অন্য একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। তিনি অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিবের দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় সচিব পদে পদোন্নতি পেলেন।