কালভার্টের মাটি সরিয়ে পানি চলাচলের পথ করে দিলেন উখিয়ার ইউএনও

ছবি:সিপ্লাসটিভি.নিউজ
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

মোহাম্মদ ইব্রাহিম মোস্তফা, উখিয়া: উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের জুম্মাপাড়া এলাকার কালাচন্দখোলা গ্রামে জোরপূর্বক প্রভাব কাটিয়ে কালভার্টের মুখ বন্ধ করে মাটি ভরাট করে ওই এলাকার জাফর আলমের ছেলে ছুরুত আলম। এতে পানি চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে রাস্তাতে হাটু সমান পানি জমে যায় এবং পার্শ্ববর্তী বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পড়ে।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় মেম্বারসহ এলাকাবাসী ছুরুত আলমের সাথে কথা বললেও সে তা কর্ণপাত করেনি। তাতে সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম ক্ষোভ সৃষ্টি হয়।

এমন অভিযোগ পেয়ে মাত্র আধঘন্টার মধ্যে ঘটনাস্থলে গিয়ে কালভার্টের মাটি সরিয়ে পানি চলাচলের পথ করে দিয়ে সমস্যা সমাধান করে দিয়েছেন উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান হোসাইন সজিব।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ হোসাইন সিকদার জানান, ছুরুত আলম দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন অপকর্ম করে অবৈধ টাকার মালিক হয়। এতে সে প্রভাব দেখিয়ে কালভার্টের পানি চলাচলের মুখ বন্ধ করে দিয়ে বাগান করার অপচেষ্টা করে।

বিষয়টি নিয়ে তার সাথে কথা বললেও সে কর্ণপাত করেনি। ফলে সামান্য বৃষ্টিতে রাস্তায় এবং আশেপাশের বাড়িঘর গুলোতে পানি জমতে থাকে। এক পর্যায়ে এলাকাবাসির মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান হোসাইন সজিবকে জানানো হয়।

পরে তিনি তাৎক্ষনিক উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী শফিউল আলমসহ ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে আসেন ও ছুরুত আলমকে ডেকে তাৎক্ষনিক মাটি সরানোর নির্দেশ দেন এবং এলাকায় কোনো অপকর্ম না করার হুশিয়ারি দেন।এতে হাফ ছেড়ে বাঁচেন ঐ এলাকার বাসিন্দারা।

বিষয়টি জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমরান হোসাইন সজিব বলেন, “কালাচন্দখোলা গ্রামের বিষয়টি জটিলতা জানতে পেরে সরেজমিনে পরিদর্শনে যাই। ঘটনার সত্যতা পেয়ে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিয়ে ফের যথাযথভাবে পানি চলাচলের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়।

এদিকে, তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিয়ে বিষয়টি সমাধান করে দেওয়ায় একজন ইউএনও’র আন্তরিকতায় মুগ্ধ হয়ে সাধুবাদ জানিয়েছে গ্রামবাসী।