হাটহাজারীতে নিখোঁজের দুইদিন পর মিলল যুবকের লাশ

মোহাম্মদ উল্লাহ (৩০)
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

হাটহাজারী প্রতিনিধি: ঘর থেকে রাত নয়টায় ডেকে নেয়ার দুই দিন পর মিলল মোহাম্মদ উল্লাহ (৩০) নামের এক শ্রমিকের মরদেহ।

বুধবার (৯ নভেম্বর) সকাল ৮টায় হাটহাজারী নাজিরহাট সড়কের মির্জাপুর ইউনিয়নের চারিয়া ইজতেমা মাঠের পশ্চিমে খোলা মাঠের বিদ্যুৎ কুটির নিচ থেকে মরদেহটি উদ্ধার করেছে মডেল থানা পুলিশ। সে মির্জাপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের মৃত শফির পুত্র ও ২সন্তানের জনক।

থানা পুলিশ ও পরিবার সুত্রে জানা যায়, গত সোমবার রাত নয়টায় ঘর থেকে মোহাম্মদ উল্লাহকে ডেকে নিয়ে যায়।পরে আর ঘরে ফেরেনি।পরে থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করে। দুইদিন পর বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় নাজিরহাট সড়কের চারিয়া ইজতেমা মাঠ সংলগ্ন বিদ্যুৎ কুঠির নিচ থেকে পড়ে থাকা অবস্থায় দেখতে ফেলে পুলিশকে খবর দিলে ঘটনাস্থলে হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো.শাহাদাৎ হোসেন,ওসি রুহুল আমিন সবুজ পরিদর্শন করে উপ-পরিদর্শক ফয়সালের সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।

নিহতের স্ত্রী রুমি আকতার জানান,সোমবার ঘুম থেকে রাত নয়টার দিকে আমার স্বামীকে আরমান নামের এক ব্যক্তি সহ কয়েকজন লোক ডেকে নিয়ে যায়।পরে আর ঘরে ফিরেনি।আমি তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলে আসবে।কিন্তু না আসায় আমরা বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে থাকি।পরে আরমান আবারো ফোন করে বলে কাউকে বলবেনা চারিয়া ইজতেমা মাঠের  বিদ্যুৎ কুটির নিচে পড়ে আছে।সেখানে গিয়েও পায়নি।আবারো কল দিলে সকাল সাড়ে ৮টায় গেলে আমার স্বামীর নিথর দেহ দেখতে পায়।আমার স্বামীর খুনির বিচার চাই বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। আমার স্বামীর হত্যায় জড়িতদের ফাঁসি চাই।

মির্জাপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মো.জসিম জানান,গত ২দিন আগে নিখোঁজ হলে আমরা বিভিন্ন জায়গায় খুঁজেছি।থানাকে অবহিত করেছি।পরে সকালে লাশ পড়ে আছে খবর পেয়ে পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার করা হয়েছে।সুস্থ বিচারের দাবি করেন তিনিও।

হাটহাটজারী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ পড়ে আছে সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার করি।লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।মামলার প্রস্তুতি চলছে।গুরুত্বসহকারে বিষয়টি খতিয়ে দেখে রহস্য উদঘাটন করা হবে।

হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো.শাহাদাৎ হোসেন বলেন,সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। সংগঠিত ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে মাঠে নেমেছে পুলিশ।অতি শীঘ্রই জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।