সৌদি আরবের টুরিস্ট ভিসা দেয়ার তালিকায় নাম নেই বাংলাদেশের

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

ট্যুরিষ্ট ভিসা সম্পর্কিত গত ২৭ অক্টোবর হতে সৌদি আরবে ভ্রমণের জন্য ট্যুরিস্ট ভিসা চালু করছেন সৌদি সরকার।

প্রাথমিকভাবে ৪৯টি দেশের নাগরিকগণ অন-এরাইভাল ভ্রমণ ভিসা পাওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। উক্ত দেশের নাগরিকগণ ভ্রমণপূর্বে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত সৌদি দুতাবাস থেকেও অগ্রিম ভিসা নিতে পারবেন।

অন-এরাইভাল ভিসা সহজতর করার জন্য সৌদি পোর্টগুলোতে সেলফ সার্ভিস মেশিন স্থাপন করা হয়েছে, উক্ত মেশিনে পাসপোর্ট স্ক্যান করে হাতের ছাপ ও ছবি তুলার পর অটোমেটিক্যালি প্রদত্ত স্লিপ নিয়ে নির্ধারিত কাউন্টারে ভিসা ফি ৩০০ রিয়াল এবং হেলথ ইন্সুরেন্স ফি ১৪০ রিয়াল হিসেবে সর্বমোট ৪৪০ রিয়াল প্রদান করতে হবে।

উক্ত ভিসার বৈধতা থাকবে ৩৬০ দিন এবং সৌদি আরবে অবস্থানের বৈধতা থাকবে ৯০ দিন প্রতি ভ্রমণে এবং কোন ভাবেই তা এক বছরে ১৮০ দিনের বেশি হবে না।

সৌদি কর্তৃপক্ষের বিবৃতি মোতাবেক কয়েক মিনিটের মধ্যেই অন-এরাইভাল ভিসা কার্যক্রম সম্পন্ন করা যাবে। সৌদি কমিশন ফর ট্যুরিজম অ্যান্ড হেরিটেজের চেয়ারম্যান আহমেদ আল খাতিব রিয়াদের আদ-দিরিয়াহ শহরে এক অনুষ্ঠানে এ ভিসার কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

যে ৪৯টি দেশের নাগরিকদের জন্য এ ভিসা চালু করা হয়েছে। কিন্তু সৌদি আরব-বাংলাদেশ প্রায় দেড়হাজার বছরের বেশি সুসম্পর্ক থাকলেও সে তালিকায় নেই বাংলাদেশের নাম।

সৌদি আরবের পর্যটন ভিসার জন্য যে ৪৯টি দেশের নাগরিক আবেদন করতে পারবে সে দেশগুলো হলো- ১/ ইউরোপন ৩৮টি দেশ যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, বেলজিয়াম,সাইপ্রাস, যুক্তরাজ্য, ক্রোয়েশিয়া, এস্তোনিয়া, অ্যান্ডোরা, ডেনমার্ক, জার্মানি, বুলগেরিয়া, ফ্রান্স, হাঙ্গেরি, চেক প্রজাতন্ত্র, হল্যান্ড, ইতালি, ফিনল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, লিথুয়ানিয়া, গ্রিস, লিচটেনস্টেইন, মোনাকো, আইসল্যান্ড, মাল্টা, পোল্যান্ড, লাটভিয়া, নরওয়ে, রাশিয়া, লুক্সেমবার্গ, রোমানিয়া, স্লোভেনিয়া, মন্টিনেগ্রো, স্লোভাকিয়া, সুইজারল্যান্ড, পর্তুগাল, সুইডেন, স্যান ম্যারিনো, ইউক্রেন, (হংকং, ম্যাকাউ ও তাইওয়ান চীনের অন্তর্ভুক্ত হিসেবে ভিসা ২-এশিয়ার ৭ টি দেশঃ (ব্রুনাই, জাপান, সিংগাপুর, মালেশিয়া, দঃ কোরিয়া, কাজাকিস্থান এবং চীন)। ৩-উত্তর আমেরিকার ২টি দেশঃ (ইউনাইটেড স্টেটস এবং কানাডা)। ৪-অষ্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড।

বিশেষ শর্তাবলীঃ *অমুসলিম পর্যটকগণ মক্কা এবং মদিনায় প্রবেশ করতে পারবেন না। *১৮ বছরের কম বয়স্ক পর্যটকগণ একা সৌদি আরবে প্রবেশ করতে পারবেন না। * পর্যটন ভিসাকে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যাবে না। *পর্যটন ভিসা ব্যবহার করে হজ্ব করা যাবে না। হজ্ব মওসুম ব্যতীত অন্যান্য সময়ে এই ভিসা ব্যবহার করে উমরাহ আদায় করা যাবে। *মহিলাদের মার্জিত পোশাক ব্যবহার করতে হবে এবং সৌদি সামাজিক আচার-আচরণের পরিপন্থি কার্যকলাপ হতে বিরত থাকতে হবে।