ছাত্রদলের উপর হামলার প্রতিবাদে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের মিছিল

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সংঘর্ষের এক পর্যায়ে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ধাওয়া দিয়েছে ছাত্রলীগ। এসময় কার্জন হল, দোয়েল চত্বর ও শিশু একাডেমির সামনে দিয়ে মাজার গেট হয়ে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে অবস্থান নেন ছাত্রদল নেতাকর্মীরা। পরে সেখানেও তাদের ধাওয়া দেওয়া হয়। এতে নাহিদ চৌধুরী নামের এক ছাত্রদল নেতা আহত হন। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে ক্যাম্পাসে ছাত্রদল মিছিল বের করলে এ সংঘর্ষ বাঁধে। এসময় উভয়পক্ষের হাতে লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র দেখা যায়।

আদালত এলাকায় ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে তাৎক্ষণিক মিছিল বের করেছেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট ইউনিট ও কেন্দ্রীয় সংগঠনের নেতা ও আইনজীবীরা। এসময় হামলার প্রতিবাদে ‘সুপ্রিম কোর্টে হামলা কেন’সহ বিভিন্ন স্লোগান দেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জাতীয়তাবাদী আইনজীবীরা জানান, পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ছাত্রদল ক্যাম্পাসে মিছিল বের করে। এসময় ছাত্রলীগের ধাওয়ায় তারা দোয়েল চত্বর হয়ে সুপ্রিম কোর্টের মাজার গেট মোড়ে অবস্থান নেয়। পরে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্ট এবং দোয়েল চত্বরসহ মাজার গেটের দিকেও ধাওয়া করে। এসময় দুপক্ষের হাতেই লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র দেখা যায়।

এদিকে দুপক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় আহত অন্তত ৬-৭ জন নেতাকর্মীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

গত ২২ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক বিএনপি চেয়ারপারনকে কটূক্তির প্রতিবাদে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বক্তব্য রাখেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষুব্ধ হয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ওইদিনই সন্ধ্যায় টিএসসিতে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এতে তিনজন আহত হন। এ ঘটনার প্রতিবাদে ছাত্রদল কর্মসূচি দেওয়ার কথা জানালে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ক্যাম্পাসে মহড়া দেয়।

ওই হামলার প্রতিবাদে ও জুয়েলের বক্তব্যের ব্যাখ্যা তুলে ধরতে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে ছাত্রদলের সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করে ছাত্রদল। সংবাদ সম্মেলনে আসার পথে তাদের ওপর হামলা চালান ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এতে দুপক্ষের প্রায় অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হন।