সীতাকুণ্ড ট্রাজেডি লাইভ করা সেই তরুণের লা’শ উ’দ্ধা’র

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে আ’গু’নের ঘটনা ফেসবুকে লাইভ করছিলেন অলিউর রহমান নামে এক তরুণ। গতকাল শনিবার রাত ১০টার দিকে যখন আ’গু’ন লাগে তখন একটু দূরে দাঁড়িয়েই মোবাইলে ফেসবুক লাইভ করছিলেন তিনি। লাইভে দেখা যায়, কনটেইনারে আ’গু’ন জ্বলছে এবং ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আ’গু’ন নেভানোর চেষ্টা করছেন।

লাইভে থাকা অবস্থায় দেখা যায় হঠাৎ বি’স্ফোরণ। এরপরই স্ক্রিন অন্ধকার হয়ে যায়। এরপর দীর্ঘ সময় তার সন্ধান মেলেনি। রাত ২টার দিকে ফেসবুক লাইভকারী তরুণ ওয়ালিউর রহমানের লা’শ আসে চট্টগ্রামের পার্কভিউ হাসপাতা’লে।

হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, রাত ১টা থেকে ২টা পর্যন্ত চট্টগ্রামের বেসরকারি পার্কভিউ হাসপাতা’লে অ’গ্নিদ’গ্ধ ৩০ জনকে নিয়ে আসা হয়। এদের মধ্যে ১৫ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। একজনকে আনা হয় মৃ’ত অবস্থায়। তিনি লাইভ ভিডিওকারী অলিউর রহমান।

অলিউরের সহকর্মী রুয়েল আহমদ গনমাধ্যমেকে জানান, আমরা এই সময়টাতে খাবারের জন্য ডিপো থেকে চলে আসলেও ফেসবুকে লাইভ করার জন্য অলিউর সেখানে থেকে যায়। তার লাইভ ভিডিও দেখলেই সবকিছু বুঝা যাবে।

রুয়েল আহমদ আরোও বলেন, আগুন লাগার পর বিকট শব্দে বিস্ফোরণ হচ্ছিল। এ ঘটনার ভয়াবহতা ছিল অনেক। বিস্ফোরণের ঘটনায় ডিপোর ভেতরে থাকা কেউ বেঁচে থাকার কথা নয়। আর অলিউর বেঁচে থাকলে আমার কাছেই আসত। কারণ আমরা একসঙ্গে কাজ করি। এক জায়গায়তেই থাকি। যখন বিস্ফোরণ ঘটে তখন মূলত রাতের খাবারের সময় ছিল। নয়তো আরও অনেক লোক মারা যেতেন।