সীতাকুণ্ডে পুলিশের তাড়া খেয়ে পালাতে গিয়ে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে চালক নিহত

পুলিশের তাড়া খেয়ে পালাতে গিয়ে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে কোরবান আলী (৩০) নামে এক সিএনজি চালক নিহত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি: সীতাকুণ্ডে পুলিশের তাড়া খেয়ে পালাতে গিয়ে সিএনজি চালিত অটোরিকশার সঙ্গে বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে কোরবান আলী (৩০) নামে অটোরিকশার চালক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অটোরিকশার ৩ নারী যাত্রী।

বুধবার (৩ আগস্ট) সকাল ১১ টার দিকে সীতাকুণ্ড উপজেলা নুনাছড়া ও বটতলের মধ্যবর্তী বহদ্দারপুল নামক এলাকার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত কোরবান আলীর বাড়ি উপজেলার পন্থিছিলা ফকির পাড়া এলাকায় বলে জানা গেছে।

অপর দিকে সকাল ১০টার দিকে বড় কুমিরার মহাসড়কে দুটি ৮নং (লোকাল) বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত ৮ জন আহত হয়েছেন। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করে।

এদিকে সিএনজি-বাস দূর্ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা মহাসড়ক আধা ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। তাদের অভিযোগ, হাইওয়ে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালানোর সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে। হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম সিভিল পোশাকে অপর একটি অটোরিকশায় করে তাদের ধাওয়া করে। পিছনের অটোরিকশায় পুলিশ আছে বুঝতে পেরে মহাসড়কে গাড়ি ঘোরাতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সীতাকুণ্ড সার্কেল) আশরাফুল করিম ও থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ব্যাপারে এএসপি আশরাফুল করিম বলেন, “হাইওয়ে পুলিশ দেখে সিএনজি অটোরিকশাটি ঘুরিয়ে উল্টো পথে চলে যাওয়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। সিএনজিকে বাচাঁতে গিয়ে বাস আইল্যান্ডের উপর ওঠে যায়। এ ঘটনায় স্থানীয় জনতা উত্তেজিত হয়ে কিছুক্ষণ সড়ক অবরোধ করে রাখে। খবর পেয়ে আমরা গিয়ে তাদের সরিয়ে মহাসড়ক যান চলাচল স্বাভাবিক করি।”

বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার ওসি নাজমুল হক জানান, “দুটি ৮নং বাসের সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বাস দুটি আটক আছে। দুইটি ঘটনায় তিন নারীসহ মোট ১১জন আহত হন।”