সামাজিক সুরক্ষায় দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ দ্বিতীয়

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে জনসংখ্যার অংশ বিবেচনায় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। সামাজিক সুরক্ষার বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে অন্তত একটিতে কত মানুষ সেবা পাচ্ছে, তার ভিত্তিতে এ প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও।

‘সোশ্যাল প্রটেকশন ফর অল ইন এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিক’-এ নামের প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ২৮ দশমিক ৪ শতাংশ মানুষ সামাজিক সুরক্ষার আওতায় রয়েছে। বাংলাদেশের পেছনে থাকা ভারতের মোট জনসংখ্যার ২৪ দশমিক ৪ শতাংশ এ সুবিধার আওতায় রয়েছে। পাকিস্তানের মাত্র ৯ দশমিক ২ শতাংশ মানুষ সামাজিক সুরক্ষার আওতায় রয়েছে। তালিকায় পাকিস্তানের অবস্থান ষষ্ঠ। আইএলওর এ তালিকায় দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষে রয়েছে শ্রীলঙ্কা। দেশটির ৩৬ শতাংশের বেশি মানুষ সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত। দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের মধ্যে মালদ্বীপের অবস্থান চতুর্থ, নেপাল পঞ্চম, ভুটান সপ্তম ও আফগানিস্তান নবম অবস্থানে রয়েছে। অন্যদিকে এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ৪০টি দেশের মধ্যে সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে জনসংখ্যার অংশ বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান ২২তম। সম্প্রতি জেনেভায় আইএলওর সদরদপ্তর থেকে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।

 

আইএলওর প্রতিবেদন বলা হয়, উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সত্ত্বেও সামাজিক সুক্ষায় বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চল এখনও বড় ব্যবধানে পিছিয়ে আছে। প্রতিবেদনে ২০২০ থেকে ‘২২ সালের পরিস্থিতি বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির আওতা বাড়লেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে অনেক দেশ সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি বাস্তবায়নে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে। এ সময় বিভিন্ন সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিতে প্রকৃত সুবিধাভোগীদের অর্ন্তভুক্ত করার ক্ষেত্রে আগে থেকেই চলে আসা অনিয়ম আরও দৃশ্যমান। পাশাপাশি স্বাস্থ্যসেবা, কর্মসংস্থান, সামাজিক স্থিতিশীলতা বিষয়ক আরও কর্মসূচি হাতে নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে।