সানজানার আত্মহত্যা: বাবা শাহীন আলম কারাগারে

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: রাজধানীর দক্ষিণখানে ১২ তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সানজানা মোসাদ্দিকার (২১) আত্মহত্যার ঘটনায় করা প্ররোচনার মামলায় বাবা শাহীন আলমকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আজ শনিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট হুমায়ুন কবীর কারাগারে পাঠানোর এই নির্দেশ দেন।

এক দিনের রিমান্ড শেষে শাহীন আলমকে আদালতে হাজির করে দক্ষিণখান থানা-পুলিশ। তদন্ত কর্মকর্তা তাঁকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন জানান। শুনানি শেষে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার শাহিন আলমকে এক দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। গত বুধবার ময়মনসিংহের গফরগাঁও থেকে সানজানার বাবাকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

গত ২৭ আগস্ট দুপুরে দক্ষিণখান মোল্লারটেক এলাকার একটি ১২ তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়েন সানজানা মোসাদ্দেক। সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় রাতেই সানজানার মা বাদী হয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন।

সানজানার বাবা শাহীন আলম পাঁচ বছর আগে তাঁদের না জানিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। বিষয়টি জানাজানি হলে দুই পরিবারের মধ্যে টানাপোড়েন শুরু হয়। এরপর সানজানার মা দুই মাস আগে স্বামীকে তালাক দেন। এরপর শাহীন সানজানার বিশ্ববিদ্যালয়ের সেমিস্টার ফিসহ আনুষঙ্গিক খরচ দেওয়া বন্ধ করে দেন।

এদিকে, আত্মহত্যার আগে বাবাকে দায়ী করে একটি চিরকুট লিখে গেছেন ওই সানজানা। চিরকুটটি উদ্ধার করেছে দক্ষিণখান থানা-পুলিশ।

চিরকুটে লেখা ছিল, ‘আমার মৃত্যুর জন্য আমার বাবা দায়ী। একটা ঘরে পশুর সঙ্গে থাকা যায়, কিন্তু অমানুষের সঙ্গে না। একজন অত্যাচারী রেপিস্ট, যে কাজের মেয়েকেও ছাড়েননি। আমি তার করুণ ভাগ্যের সূচনা।’