‘শুভ জন্মদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি শতায়ু হোন’

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

শুভ জন্মদিন প্রধানমন্ত্রী, আপনি শতায়ু হোন, দেশের জন্য আপনাকে প্রয়োজন।৭৫-এ বঙ্গবন্ধু’কে আমরা হারিয়েছি। সেই হারানোর অপূর্ণতা এই দেশ এই জাতি কখনো পূরণ করতে পারবে না। কিন্তু তাঁর যোগ্য উত্তরসুরী হিসেবে ১৭ কোটি বাঙালির অভিভাবক হিসেবে আপনাকে হারাতে চাই না।

দেশ আজ আপনার হাত ধরে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। বিদেশীরা এখন ব্রিফকেস ভর্তি টাকা নিয়ে আমাদের পেছনে ঘুরছে, কারন আপনি আমাদের সোনার বাংলাদেশ কে সেই সক্ষমতার জায়গায় নিয়ে গেছেন।

বিশ্ব ব্যাংক কে চ্যালেঞ্জ করে পদ্মা সেতু নির্মাণে যে অসীম সাহসিকতা দেখিয়েছেন তাতে বিশ্ব নেতারা আজ হতবাক। আজ সেই স্বপ্নের সেতু দৃশ্যমান। অর্থায়নে পিছপা হওয়া সেই বিশ্বব্যাংক আজ স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে পদ্মা সেতুতে ঋণ না দেওয়া তাদের ভুল ছিলো।

দেশের মানুষ যা স্বপ্নে ও ভাবেনি – নদীর নিচে টানেল হবে এই বাংলাদেশে। অথচ আপনার হাত ধরে তা আজ বাস্তবায়নের পথে।

শিক্ষা এবং চিকিৎসায় দেশ এগিয়েছে অনেক দূর। বিনামূল্যে শিক্ষা তথা অবৈতনিক শিক্ষা এ শুধু বুলি নয়, বাস্তবতা। নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে রোল মডেল। কমেছে মাতৃমৃত্যুর হার। বেড়েছে মানুষের গড় আয়ু। ১০ টাকায় ব্যাংক একাউন্ট খুলে কৃষকের জন্য খুলে দিয়েছেন এক নতুন জগত। মোবাইল ফোন কে এত সহজলভ্য করেছেন যে, ফসলের মাঠ থেকেই কৃষক জানতে পারে ফসলের মূল্য।

ফাড়িয়াবাজদের দৌরাত্ম্য থেকে কৃষক আজ মুক্ত। ডিজিটাল টাকা যা ছিলো শুধু উচ্চবিত্তদের এটিএম কার্ডে, আজ তা মানুষের হাতে হাতে পৌঁছে গেছে মোবাইল ব্যাংকিং এর কল্যাণে। উন্নত দেশগুলোর সাথে তাল মিলিয়ে মহাকাশেও চলছে দেশের জয়যাত্রা আপনারই হাত ধরে। আমাদের গর্ব আমাদের অহংকার ‌’বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’এর সাহায্য নিচ্ছে অন্যান্য অনেক দেশ।

শুধু কি তাই! বিশাল সমুদ্রের নিরাপত্তায় মাথা উঁচু করে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে দু দুটো সাবমেরিন। আপনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের প্রশিক্ষিত ও সুশৃঙ্খল সামরিক বাহিনীর সদস্যরা বহির্বিশ্বে একটি সমীহ জাগানিয়া নাম। আপনার আমলে বিদুৎ সেক্টরে আজ আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ। অদূর ভবিষ্যতে বিদ্যুৎ সমস্যার স্হায়ী সমাধান কল্পে চলছে পারমানবিক বিদুৎ প্রকল্পের নির্মান কাজ।

গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ অচিরেই বাস্তবায়ন হবে। দেশব্যাপী উন্নয়নের এই মহাযাত্রা দেখে আজ বহির্বিশ্বের অনেক নেতাই আজ বলতে শুরু করেছে ‘উন্নয়ন দেখতে হলে বাংলাদেশে যাও’। আপনার কর্মকান্ড একের পর এক পাচ্ছে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। সেই হেনরি কিসিঞ্জারের তলাবিহীন ঝুড়ির অপবাদ ঘুচিয়ে বাংলাদেশ আজ ১০ লক্ষ রোহিঙ্গার আশ্রয়দাতা।

শুধু তাই নয়, তাদের অন্ন বস্ত্র চিকিৎসার ও জোগানদাতা এই বাংলাদেশ। বাংলাদেশের মুদ্রামান আজ ভারতীয় মুদ্রা’কে ছুঁই ছুঁই করছে। তবে উন্নয়নের এই মহাসড়কের যাত্রাটা সব সময় কুসুমাস্তীর্ণ ছিলো না। এসেছে অনেক বাধা, অনেক বিপত্তি। এসব বাধ-বিপত্তিকে আপনি গুড়িয়ে দিয়েছেন যেভাবে গুড়িয়ে দিচ্ছেন অদম্য সাহসিকতায়। পাশ্চাত্যের ষড়যন্ত্রের অংশ ছিলো বাংলাদেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র হিসাবে পরিচিত করা। আপনি সেই ষড়যন্ত্রের মুখে কুঠারাঘাত করেছেন। জঙ্গির বংশ কে করেছেন সমূলে নির্মূল।

দেখতে দেখতে জীবনের ৭২টি বছর পার করছেন আজ।

জীবনের আরেকটি বছরের অর্থাৎ ৭৩ এর সূচনালগ্নে আপনি শুরু করেছেন নতুন এক যুদ্ধ। দুর্নীতি বিরোধী যুদ্ধ। এ যুদ্ধে ছাড় পাচ্ছে না ছাত্র,যুবক, মন্ত্রী, এমপি,উজির নাজির কেউই। এ এক দুঃসাহসিক সিদ্বান্ত। যা একমাত্র মমতাময়ী কিন্ত নীতির প্রশ্নে আপোষহীন শেখ হাসিনার পক্ষেই সম্ভব।

২০২১ সালের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে দেশব্যাপী দুর্নীতির বটবৃক্ষকে নির্মূল করতে হবে। আমরা আশায় বুক বেঁধেছি। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ বাংলাদেশ আজ আপনার হাত ধরে ডিজিটাল বাংলাদেশে পরিণত হয়েছে। আর আজকের এই ডিজিটাল বাংলাদেশ আপনার হাত ধরে পরিণত হবে মধ্যম আয়ের দেশে।

শুভ জন্মদিন হে জননেত্রী…জয়তু শেখ হাসিনা…

লেখক : আমিনুল হক বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক কেন্দ্রীয় কার্য্যনির্বাহী সংসদ ও সভাপতি চট্টগ্রাম মহানগর, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট।