লিব্রাকে বিদায় জানালো ভিসা, মাস্টারকার্ড

গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের প্রস্থানে অনিশ্চিত লিব্রার ভবিষ্যত।
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

বিশ্বব্যাপী পণ্য কেনাকাটায় কার্ডভিত্তিক আর্থিক লেনদেনের দুই তৃতীয়াংশই হয় এই দুই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। এর আগে অনলাইনে আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে আরেক শীর্ষ প্রতিষ্ঠান পেইপ্যাল লিব্রা অ্যাসোসিয়েশন ত্যাগের ঘোষণা দেয় গত সপ্তাহে।

দুই ক্রেডিট কার্ড জায়ান্টের পাশাপাশি অনলাইন নিলাম প্রতিষ্ঠান ও খুচরা বিক্রেতা ইবে, অনলাইনে বাণিজ্যিক লেনদেন সেবা স্ট্রাইপ এবং লাতিন আমেরিকায় জনপ্রিয় অনলাইন পেমেন্ট সেবা মার্কাডো পাগো-ও লিব্রা ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে- খবর রয়টার্সের।

উল্লিখিত প্রতিষ্ঠানগুলো লিব্রা ছেড়ে যাওয়ার মানে হচ্ছে বৈশ্বিক কোনো আর্থিক লেনদেন প্রতিষ্ঠান আর লিব্রার সঙ্গে থাকছে না। এ অবস্থায় প্রচলিত মুদ্রা এবং ডিজিটাল মদ্রার লিব্রার মধ্যে পারস্পরিক রূপান্তরের কোনো পথও খোলা থাকছে না।

লিব্রা অ্যাসোসিয়েশনে এখন রয়েছে রাইড শেয়ারিং স্টার্টআপ লিফট, মোবাইল সেবাদাতা ভোডাফোনসহ কয়েকটি ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, ব্লকচেইন ও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান।

ভিসা এক বিবৃতিতে বলেছে, “ভিসা এখনই লিব্রা অ্যাসোসিয়েশনে যোগদান না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।” প্রতিষ্ঠানটি আরও বলে, “আমরা মূল্যায়ন অব্যাহত রাখব এবং আমাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তটি নির্ভর করবে কয়েকটি বিষয়ের ওপর। এর মধ্যে রয়েছে সকল নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের প্রত্যাশা পুরোপুরি মেটানো।”

ফেইসবুকের লিব্রা প্রকল্পের প্রধান ও সাবেক পেইপ্যাল কর্মকর্তা ডেভিড মার্কাস টুইটারে বলেন, “এই সংবাদটি লিব্রার ভবিষ্যত প্রশ্নে স্বল্প মেয়াদে হলেও ভালো খবর নয়।”

অবশ্য লিব্রার নীতি ও জনসংযোগ প্রধান দান্তে ডিস্পার্তে এক বিবৃতিতে বলেছেন, লিব্রা এই অচলাবস্থা সত্ত্বেও তিন দিনের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে এই সংস্থার সনদ নেওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাবে।

ফেইসবুক ২০২০ সালের জুন নাগাদ লিব্রা চালুর ঘোষণা দিয়েছিল। ঘোষণার সময়ই ফেইসবুক লিব্রা অ্যাসোসিয়েশনের অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে মিলেই এটি চালু করার কথা বলে। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই প্রকল্পটি নিয়ে বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন আর্থিক নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে প্রশ্নের মুখে পড়ে। তাদের ভাষ্য ছিল, মুদ্রাটি প্রচলনের আগেই বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নে জবাব মিলতে হবে।

ফ্রান্স এবং জার্মানি গত মাসেই জানিয়ে দেয় তারা ইউরোপে লিব্রাকে চালাতে বাধা দেবে। এর পরিবর্তে দেশ দুটি ‘পাবলিক ক্রিপ্টোকারেন্সি’কে সমর্থনের কথা বলে। অপরদিকে মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভ চেয়ারম্যান জেরোমি পাওয়েল বলেন, লিব্রা প্রকল্পটি সামনে এগোনোর আগে গোপনতা, অর্থ পাচার, ভোক্তা সুরক্ষা এবং আর্থিক স্থিতিশীলতার বিষয়গুলির সুরাহা হওয়া দরকার।