রেলস্টেশনে অপ্রীতিকর ঘটনা, আরএনবির তিন সদস্যের দোষ স্বীকার

রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএনবি) কয়েকজন সদস্য
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: টিকিট থাকার পরও ট্রেনের কামরায় ওঠার সময় অনৈতিকভাবে অতিরিক্ত টাকা দাবি করেছিলেন রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর (আরএনবি) কয়েকজন সদস্য। এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় চট্টগ্রাম রেল স্টেশনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক সদস্যকে পরিচয় দেওয়ার পরও লাঞ্ছিত করা হয়।

ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ পাওয়ার পর ঢাকা ও চট্টগ্রামে অভিযান চালিয়ে ৩ জন আরএনবি সদস্যকে আটক করে র‌্যাব-৭। আটককৃতদের বিরুদ্ধে ঘুষ দাবি, আক্রমণ, মারামারি, হত্যার উদ্দেশ্য ও মানহানির অভিযোগে মামলা করা হবে।

শুক্রবার (২৬ আগস্ট) সকালে র‌্যাব-৭ এর চান্দগাঁও ক্যাম্পে এক  ব্রিফিংয়ে লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ এই তথ্য জানিয়েছেন।

আটক তিন আরএনবি সদস্য হলেন- মো. মাইন হাছান রাকিব (২৩), রিটন চাকমা (২৪) ও মো. রবিউল ইসলাম (৩০)।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ বলেন, গত ৮ আগস্ট একজন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য চট্টগ্রাম থেকে মেইল ট্রেনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাওয়ার উদ্দেশ্যে রাত দশটায় চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে উপস্থিত হন। ট্রেনের টিকিট কেটে প্ল্যাটফর্মে থাকা ঢাকা মেইল ট্রেনে তার নির্দিষ্ট বগিতে উঠতে যাওয়ার সময় রেলওয়ের নিরাপত্তা ডিউটিতে নিয়োজিত কয়েকজন আরএনবি সদস্য তাকে ট্রেনের সামনের ৩টি বগির যেকোনও একটিতে যেতে বলে। এই বগিতে উঠতে হলে তাদেরকে ৩শ টাকা দিতে হবে বলে জানায়। টাকা না দিলে ওই বগিতে ওঠা যাবে না বলে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। কথাবার্তার একপর্যায়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওই সদস্যকে আরএনবির সদস্যরা অন্যায় ও অযাচিতভাবে গালাগালি, মারধর, রাইফেল দিয়ে ধাক্কাসহ ব্যাপক গালমন্দ করে।

তিনি আরও বলেন, গত ২৪ আগস্ট ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয় এবং চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। গত ২৫ আগস্ট বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় অভিযান চালানো হয়। আটককৃতদের বিষয়ে তথ্য দিয়ে আরএনবির সিনিয়র কর্মকর্তারা সহযোগিতা করেছেন। সেখানে একটি চক্র রয়েছে। ঘটনার সঙ্গে যদি আরএনবির পরিদর্শকও জড়িত থাকেন, তাহলে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এম এ ইউসুফ বলেন, আটককৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন।  পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তাদেরকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হবে।