রাউজানে অগ্নিকান্ডে তিন বসতঘর পুড়ে ছাই, ৯৯৯ কলে রক্ষা পেল নয় দরিদ্র পরিবার

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন
রাউজানে ৯৯৯ কলে রক্ষা পেল নয় দরিদ্র পরিবারের বসত ঘর। ২২ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭ টায় উপজেলার বাগোয়ান ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ব্রাহ্মদাশ পাড়ায় বৈষ্ট্য মহাজনের বাড়িতে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। অগ্নিকান্ডে জনৈক ফজলুল হকের বাঁশের বেড়া ও টিনের চালা তৈরি নয় কক্ষ বিশিষ্ট তিন বসত ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। কালুরঘাট ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সামাজিক সংগঠন উদায়ন সংঘের কর্মীদের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হলে নয় দরিদ্র পরিবার আগুনের ভয়াবহতা হতে রক্ষা পায়। জানা যায়, জনৈক ফজলুল হকের তিনবসত ঘরে থাকত দুই ভাড়াটিয়া। একটিতে থাকতেন পাশ্ববর্তী এলাকা ধরের টেকের কামাল উদ্দিন, অন্যটিতে থাকত নোয়াখালীর কবির হাটের মো. মাঈনউদ্দিন। মাঈনউদ্দিন সিপ্লাস টিভিকে জানান, তিনি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রি। তার অধিনে থাকা ১৫ জন নির্মাণ শ্রমিক তার সাথে সেখানে থাকতেন। অগ্নিকান্ডে শ্রমিকদের মজুরী বাবদ নগদ ৪২ হাজার টাকা সহ কাপড় চোপড় আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায়। অগ্নিনির্বাপনে অংশ নেওয়া স্থানীয় স্বপন মহাজন বলেন, আগুন লাগার পরপরই স্থানীয় উদায়ন সংঘের ছেলেরা আগুন নিভাতে চেষ্টা চালায়। পরে ৯৯৯ কল করলে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এতে করে আমরা নয় পরিবার আগুন হতে রক্ষা পায়। পাশ্ববর্তী ভাড়ায় থাকা মীরশ্বরাইয়ের আব্দুল্লাহ আল মিজান সিপ্লাসকে বলেন, চিৎকার শুনে রুম হতে বের হয়ে আগুন দেখে আমি ৯৯৯ কল করি। কল করার ২০ মিনিট পরই ফায়ার সার্ভিসের লোকজন উপস্থিত হয়। কালুরঘাট ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার অর্জুন বাড়ৈ সিপ্লাস টিভিকে বলেন, আমরা ৯৯৯ কল পেয়ে ২০ মিনিটের মধ্যে ঘটনা স্থলে উপস্থিত হই। আধা ঘন্টার আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।আগুনে তিন বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেলেও পাশ্ববর্তী নয় বসতঘর আগুনের ভয়াবহতা হতে রক্ষা পায়। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন উপজেলা (দক্ষিণ) ছাত্রলীগের সহ সভাপতি রবিউল ইসলাম রাজু নেতৃত্ব ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।