মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণ, দফতরি গ্রেফতার

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার থালতা মাজগ্রামের মাদ্রাসার এক ছাত্রীকে (১০) ধর্ষণের অভিযোগে ওই মাদ্রাসার দফতরিকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলে আজ শনিবার বেলা ১১টার দিকে বাসায় ডেকে নিয়ে ওই শিশুকে ধর্ষণ করা হয়। 

গ্রেফতার দফতরির নাম বাবলু গায়েন (৪৫)। তিনি থালতামাজ গ্রামের আকবর আলী গায়েনের ছেলে। নন্দীগ্রাম থানার কুমিড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক আজিজার রহমান জানান, উপজেলার এস এম ফাজিল মাদ্রাসার এক ছাত্রী শনিবার বেলা ১১টায় কয়েকজন সহপাঠীর সাথে মাদ্রাসার পাশে একটি কমিউনিটি ক্লিনিকে ওষুধ নিতে যাচ্ছিল। এসময় ওই ছাত্রীর সাথে তার মাদ্রাসার দফতরি বাবলু গায়েনের দেখা হয়। বাবলু গায়েন তাকে কমিউনিটি ক্লিনিকের পাশে তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। পরে ফাঁকা বাড়িতে তাকে ধর্ষণ করে বাবলু। 

ঘটনাটি স্থানীয় লোকজন জানতে পেরে বাড়িটি ঘেরাও করে রাখে এবং তারা থানায় খবর দেয়। দুপুরে পুলিশ এসে ওই বাড়ি থেকে মাদ্রাসা ছাত্রীকে উদ্ধার করে এবং বাবলুকে গ্রেফতার করে। 

ওই ছাত্রীর পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বাবলু তার নাতীর জন্ম হওয়ার খবর জানিয়ে মিষ্টি খাওয়ানোর কথা বলে শিশুটিকে বাড়ি ডেকে নিয়ে যায়। এসময় বাবলুর স্ত্রী ও ছেলের বউসহ সবাই হাসপাতালে থাকায় বাড়ি ফাঁকা ছিল। এই সুযোগে বাবলু শিশুটিকে ধর্ষণ করে বাড়িতেই আটকে রাখে। 

নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শওকত কবির জানান, বাবলু গায়েনকে গ্রেফতার করে নন্দীগ্রাম থানায় আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। ধর্ষণের শিকার ওই শিশুকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।