মহেশখালীতে ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদককে হামলায় জখম: টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ

মহেশখালীতে ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদককে হামলায় জখমঃ প্রতিবাদে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ।
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

মহেশখালী প্রতিনিধি: কক্মবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের ভিতরে গ্রাম আদালত চলাকালীন স্থানিয় চেয়ারম্যান এস এম আবু হায়দারের উপস্থিতিতে ২০ অক্টোবর (বুধবার) বিকাল ৪ টার সময় মাতারবাড়ী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আনোয়ার হোছাইন (২০)  নামে এক ছাত্রলীগ নেতাকে  হামলা চালিয়ে জখম করেছে স্থানিয় ইউপি সদস্য নুরুল আবছার বলে অভিযোগ তুলেছেন আহতের পরিবার ও তার দলীয় লোকজন।

তবে এঘটনায় পরস্পর বিরুধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। হামলার প্রতিবাদে ঘটনার দিন রাত সাড়ে ৭ টায় সময় মাতারবাড়ী নতুন বাজার সিএনজি স্টেশনে মোড়ে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা। এ সময় রাস্তার দু’পাশে শত শত যানবহন আটকে যায়।

এক পর্যায়ে পুলিশি হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। মাতারবাড়ী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শাহরিয়ার আহত ছাত্রনেতার বরাত দিয়ে বলেন,  স্থানিয় ইউনিয়ন পরিষদে তাঁদের একটি পারিবারিক বিচার শালিস ছিল। বিচার শালিসে আহত আনোয়ার কাগজে স্বাক্ষর দিতে গড়িমসি করলে সে কিছু বুঝে উঠার আগে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মধ্যযুগী কায়দায় হামলা চালিয়ে তাকে জখম করে।

এ সময় তিনি বলেন হামলাকারীদের আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ২৪ ঘণ্টার সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় আরো কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন।

অপরদিকে অভিযুক্ত মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য নুরুল আবছার বলেন, ছেলেটির বোন এবং ভগ্নিপতি বাদী হয়ে মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদে ছেলেটি ও পিতা-মাতাকে বিবাদী করে একটি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ দায়ের করে । বিষয়টি আমলে নিয়ে চেয়ারম্যান বিচারের দিন ধার্য্য করেন। সেখানে পূর্বের বিচারক সাবেক প্যানেল চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান এবং বর্তমান ইউপি সদস্য জাহেদুল ইসলাম উভয় বিচারককে ছেলেটির নিজ এলাকায় বিচার কার্যক্রম শেষ করে আসার সময় লোকবল নিয়ে হামলা করেছে বলে অভিযোগ করেন। যাহা পূর্বের বিচার‌‌‌ কার্যক্রমের অংশ। ছেলেটির আচার আচরণ খারাপ দেখে এবং পূর্বের ২জন বিচারকের সাথে অসদাচরণ করার অপরাধে চেয়ারম্যান সাহেবের উপস্থিতিতে নিজ এলাকার ছেলেকে শাসন করেছি মাত্র। এতে হামলার কোন প্রশ্ম উঠেনা বলে দাবি করেন তিনি।

মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক বলেন, যা আমি স্ব চক্ষে দেখেছি এলাকার ছেলে বলে সামান্য বেঘাত করে শাসন করেছে। এই বিষয়টি রাজনৈতিক বিষয় নয়। যেটিকে রাজনীতিতে নিয়ে গিয়ে এলাকার পরিস্থিতি ঘোলাট করলে জনপ্রতিনিধিরা গ্রাম আদালত পরিচালনা করতে এলাকার আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে হিমশিম খেয়ে যাবে। মাতারবাড়ী পুলিশ ফাঁড়ীর (ইনচার্জ) এস আই হাসান বলেন, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের অনুরোধ করলে তারা রাস্তা থেকে শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ করে চলে যায়।