ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তুমুল লড়াই, এগিয়ে লুলা

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট হওয়ার দৌড়ে এখন পর্যন্ত এগিয়ে আছেন লুলা দা সিলভা।
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম রাউন্ডের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জইর বলসোনারো এবং লুইজ ইনাসিও লুলা দা সিলভার মধ্যে এখন পর্যন্ত জয়ের দৌড়ে এগিয়ে আছেন লুলা।

দেশটির ৯৯ শতাংশ ভোট কেন্দ্রের ফলাফল অনুযায়ী, ৪৮ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট পেয়েছেন লুলা। অপর দিকে ৪৩ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট পেয়েছেন বলসোনারো। ব্রাজিলের ইলেকটোরাল ট্রাইব্যুনালের বরাত দিয়ে এসব তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

ব্রাজিলের নির্বাচনী নিয়ম অনুসারে প্রথম ধাপের নির্বাচনে কোনো প্রার্থী যদি ৫০ শতাংশের বেশি ভোট পান তবে প্রথমা ধাপেই তিনি বিজয়ী বলে ঘোষিত হবে। যেহেতু প্রথম ধাপের নির্বাচনে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর কেউই ৫০ শতাংশের বেশি ভোট পাননি, সেহেতু নিকটতম দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে দ্বিতীয় দফায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দ্বিতীয় ধাপে যে প্রার্থী বেশি ভোট পাবেন তিনিই প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হবেন।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, বলসোনারে ও লুলা দা সিলভার মধ্যে কে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন, তা জানতে ব্রাজিলবাসীকে প্রায় চার সপ্তাহ অপেক্ষা করতে হবে। আগামী ৩০ অক্টোবর দ্বিতীয় দফায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে। আজ থেকে ২৮ বছর আগে ব্রাজিল এমন ঘটনা ঘটেছিল।

নির্বাচনের আগে বিভিন্ন জরিপে আশাতীতভাবে এগিয়ে ছিলেন লুলা দা সিলভা। ধারণা করা হয়েছিল, তিনি প্রথম দফার ভোটেই ৫০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন। কিন্তু প্রকৃত ভোটের ফলাফলে অপ্রত্যাশিতভাবে অনেক বেশি ভোট পেয়েছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও সাবেক সেনা অধিনায়ক বলসোনারো। বলা যায়, লুলা ও বলসোনারোর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে।

৭৬ বছর বয়সী লুলা এরই মধ্যে দুই মেয়াদে—২০০৩ থেকে ২০০৬ এবং ২০০৭ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত—প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছেন। বিগত শতকের ৭০ এর দশকে লুলা শ্রমিক আন্দোলনের নেতা হিসেবে রাজনীতিতে পদার্পণ করেন। তিনি ব্রাজিলে বেশ জনপ্রিয়।

অপরদিকে, ৬৭ বছর বয়সী বর্তমান প্রেসিডেন্ট বলসোনারো রাজনীতিতে প্রবেশের আগে ব্রাজিলের সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন ছিলেন। ২০১৮ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়ার আগ পর্যন্ত তিনি ফেডারেল ডিস্ট্রিক্টের ডেপুটি ছিলেন। এই পদে তিনি টানা ২৭ বছর দায়িত্ব পালন করেন। দেশটিতে বলসোনারো রক্ষণশীল রাজনীতির সমর্থক বলে পরিচিত।

এদিকে সাও পাওলোর প্রধান সড়কে এক বিশাল সমাবেশে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে লুলা দা সিলভা বলেছেন, ‘আমরা এই নির্বাচনে জিততে যাচ্ছি। চূড়ান্ত বিজয় না আসা পর্যন্ত আমরা লড়াই করে যাব।’