বিসিএস থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের গেজেডেট পদ কেন নয় রুল

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

বিসিএসের দ্বিতীয় শ্রেণি হিসেবে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগপ্রাপ্তদের উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার বা দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা হিসেবে সুপারিশ করতে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যানসহ সাতজনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

একই সঙ্গে ৩৪তম বিসিএস নন ক্যাডার থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের রাষ্ট্রপতির নির্বাহী আদেশে সহকারী ‍উপজেলা শিক্ষা অফিসার পদে অথবা সমমর্যাদার অন্য যে কোনো পদে পদোন্নতি অথবা সুপারিশ সংক্রান্ত দরখাস্ত পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যানকে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

৭৪ জনের করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে সোমবার (১৪ অক্টোবর) বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

আইনজীবী ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া জানান, ৩৬তম বিসিএসের দ্বিতীয় শ্রেণির (নন-ক্যাডার) হিসেবে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগপ্রাপ্তদের উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার বা দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা হিসেবে সুপারিশ না করার নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ হবে না এবং দ্বিতীয় শ্রেণির যে কোনো গেজেটেড পদে বা উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার পদে কেন সুপারিশ করা হবে না তা জানতে চেয়ে চার সপ্তাহের রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। আইনজীবী ছিদ্দিক উল্যাহ মিয়া বলেন, রিট আবেদনকারীরা ৩৬তম বিসিএসে অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হন এবং নন-ক্যাডার দ্বিতীয় শ্রেণির পদে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক পদে সুপারিশপ্রাপ্ত হন। কিন্তু নন-ক্যাডার পদে নিয়োগ (বিশেষ) বিধিমালা, ২০১০ (সংশোধনী ২০১৪) এর বিধান অনুসারে দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা পদে নিয়োগ দেওয়ার বিধান রয়েছে।

কিন্তু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির হলেও গেজেটেড পদ নয়। অন্যদিকে ৩৬তম বিসিএস (নন-ক্যাডার) হিসেবে অন্য প্রার্থীরা দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা পদে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন। কিন্তু রিটকারীদের ননগেজেটেড পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। যা সমান অধিকারের পরিপন্থি। তাই মো. মাহবুব-উল-আলম, মিজানুর রহমান, জাকিরুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, আক্তারুজ্জামান, শামীম হোসেন, মাহমুদা আক্তারসহ ৭৪ জন হাইকোর্টে রিট করেন।