বিবাহের পিঁড়িতে দশম শ্রেণির ছাত্রী, উপজেলা প্রশাসনের অভিযানে বিয়ে পণ্ড

রাউজান (চটগ্রাম): বাল্যবিয়ের আসরে ভ্রাম্যমান পরিচালনা করছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুস সামাদ সিকদার।
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

রাউজান প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের রাউজানে বাল্যবিবাহের অভিশাপ হতে মুক্তি পেলেন দশম শ্রেণির এক ছাত্রী।

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার পূর্বগুজরা ইউনিয়নের এন.এস. কমিউনিটি সেন্টারে মহা ধুমধামে চলছিল বিয়ের আয়োজন। সংবাদ পেয়ে বেলা ২ টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবদুস সামাদ সিকদার ভ্রাম্যমান অভিযান পরিচালনা করে বিয়ে পণ্ড করে দেন।

অভিযানে উপস্থিত ছিলেন পূর্বগুজরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্বাস উদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, বর রাউজান উপজেলার সদর ইউনিয়নের নাতোয়ান বাগিছা এলাকার জানে আলম চৌধুরী বাড়ির মো. কামাল উদ্দিনের ছেলে মো. মোরশেদ আলম। কনে পূর্বগুজরা ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া গ্রামের ফজল করিমের মেয়ে এবং অগ্রসার বৌদ্ধ অনাথালয় উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। তার বয়স ১৫ বছর ৮মাস ১১ দিন। মেয়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার কারণে তাৎক্ষণিকভাবে বিয়ের বন্ধ করে দেওয়া হয়।

রাউজান উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুস সামাদ সিকদার বলেন, কনে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় বিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত মেয়ের বিয়ে দিবে না মর্মে কনের অভিভাবকের কাছ হতে অঙ্গীকারনামা নেওয়া হয়। সেই সাথে বর মো. মোরশেদুল আলমকে ২০,০০০(বিশ হাজার টাকা) জরিমানা করা হয় এবং তিনি ভবিষ্যতে আর কোন অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েকে বিয়ে করবে না মর্মে মুচলেখা দেন। রাউজানে বাল্যবিবাহ ও ইভটিজিং রোধে উপজেলা প্রশাসন সদা তৎপর রয়েছে।

এই বিষয়ে অভিভাবকদের সচেতন হওয়ার জন্য আহ্বান জানান।