বসুন্ধরা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হচ্ছে আজ

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় বসুন্ধরা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হচ্ছে আজ সোমবার। কয়েকটি ক্যাটাগরিতে ১১ জনকে পুরস্কৃত করা হবে। এ ছাড়া সাংবাদিকতার প্রসারে ভূমিকা রাখার জন্য প্রতিটি জেলা থেকে একজন করে ৬৪ জন সাংবাদিককে দেওয়া হবে বিশেষ সম্মাননা।

আজ (৩০ মে) সন্ধ্যা ৭টায় এ উপলক্ষে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে, প্রথমবারের মতো এ আয়োজনে মুক্তিযুদ্ধ, অপরাধ ও দুর্নীতি, নারী ও শিশু ক্যাটাগরির প্রতিটিতে প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেকট্রনিক মাধ্যমের সেরা তিনটি করে প্রতিবেদনের জন্য মোট ৯ জনকে পুরস্কার দেওয়া হবে। অনুসন্ধানী প্রামাণ্যচিত্র ও আলোকচিত্রের জন্য পুরস্কার দেওয়া হবে দুজনকে। প্রত্যেক বিজয়ী পাবেন আড়াই লাখ টাকা, ক্রেস্ট ও সনদপত্র।

তৃণমূল সাংবাদিকতায় অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে বিশেষ সম্মাননাপ্রাপ্তদের প্রত্যেকে নগদ অর্থ, সম্মাননা স্মারক ও উত্তরীয় পাবেন। অনুষ্ঠানটি প্রবীণ ও নবীন সাংবাদিকদের মিলনমেলায় রূপ নেবে বলে আয়োজকদের আশা।

বসুন্ধরা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড প্রদান উপলক্ষে স্মরণিকা প্রকাশ করেছে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড। একই অনুষ্ঠানে স্মরণিকাটির পাঠ-উন্মোচন করবেন অতিথিরা। স্মরণিকায় ৬৪ জন প্রবীণ ও গুণী সাংবাদিকের সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য, পুরস্কার পাওয়া ১১ জন সাংবাদিকের পরিচিতি, জুরিবোর্ডের সদস্যদের বিশেষ বক্তব্যসহ ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের গণমাধ্যমগুলোতে প্রকাশিত কিছু বিশেষ প্রতিবেদন থাকবে।

‘বসুন্ধরা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০২১’ আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক ও বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী হাছান মাহ্মুদ। অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. নিজামুল হক নাসিম ও ‘বসুন্ধরা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড ২০২১’-এর জুরিবোর্ডের প্রধান অধ্যাপক মো. গোলাম রহমান। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করবেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও চিত্রনায়িকা বুবলি।

আয়োজক কমিটি জানায়, আটজন গুণী ব্যক্তিত্বের সমন্বয়ে গঠিত জুরিবোর্ড দেশের সেরা অনুসন্ধানী সাংবাদিক নির্বাচিত করেছে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের অনেক সাংবাদিক তাঁদের সেরা প্রতিবেদনগুলো জমা দেন। জুরিবোর্ডের সদস্যরা সেগুলোর গুণমান যাচাই-বাছাই করে সেরা প্রতিবেদন নির্বাচিত করেছেন।

জুরিবোর্ডের প্রধান অধ্যাপক গোলাম রহমান বলেন, বস্তুনিষ্ঠ ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা উৎসাহিত করার প্রত্যয়ে এ ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগ সাধুবাদ পাওয়ার দাবি রাখে। তিনি বলেন, ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় শ্রেষ্ঠত্ব নির্বাচনের কাজটি ছিল খুবই কঠিন। পুরস্কার পাওয়ার মতো অগণিত প্রতিবেদন জমা পড়ে। সেরা প্রতিবেদনটি বাছাই করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়েছে। সবচেয়ে ভালো লাগার বিষয়টি হলো শতভাগ নিরপেক্ষতা ও যৌক্তিক বিশ্লেষণের মধ্য দিয়ে সেরা প্রতিবেদন নির্বাচন করেছি আমরা। ’

অধ্যাপক গোলাম রহমানের নেতৃত্বে জুরিবোর্ডে ছিলেন সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত, টিভি টুডের প্রধান সম্পাদক মনজুরুল আহসান বুলবুল, দৈনিক দেশ রূপান্তরের সম্পাদক অমিত হাবিব, আলোকচিত্রী ও লেখক নাসির আলী মামুন, শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেলিভিশন, ফিল্ম ও ফটোগ্রাফি বিভাগের অধ্যাপক এ জে এম শফিউল আলম ভূঁইয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাওন্তী হায়দার এবং সাংবাদিক জুলফিকার আলি মানিক।