পেকুয়ায় বাল্য বিবাহের আসর পন্ড, আবার স্কুলে যাবে নিশু

পেকুয়ায় বাল্য বিবাহের আসর পন্ড
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

এফ এম সুমন, পেকুয়া প্রতিনিধি: পেকুয়ায় বাল্য বিবাহের আসর পন্ড করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূর্বিতা চাকমা।

তিনি শুক্রবার (৪ জুন) গতকাল বিকেলে অনেকটা গোপনে হতে যাওয়া পেকুয়া শিলখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী নিশু আক্তারের (১৫) বাল্য বিবাহ পন্ড করে দিয়েছেন।

নিশু আকতার পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের আলেকদিয়া পাড়ার মোস্তাফিজের কন্যা। নিশু আকতারের মায়ের দাবী, অভাব অনটন থেকে তার মেয়েকে অল্প বয়সে বিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

সে আরো জানান, চকরিয়া কোনাখালী ইউনিয়নের মরমঘোনা এলাকার কালুর বিবাহিত পুত্রের সাথে তার মেয়ের বিয়ে ঠিকটাক হয়। আজ ছিল বিয়ের দিন।

পরে ইউএনও তাকে বুঝানোর পর সে বলে, আমি ভুল করেছি এই ভুল কখনো আর হবেনা। আমার মেয়েকে লেখাপড়া করিয়ে মানুষের মতো মানুষ বানাবো।

বিয়ের পিড়ীতে বসতে যাওয়া স্কুল ছাত্রী নিশু আকতার বলেন, পরিবার অভাবের কারনে আমি ভুল করে এই বাল্য বিবাহের আসরে বসতে ছিলাম কিন্ত ইউএনও আপা আমাকে যেভাবে বুঝালেন এখন বুঝলাম, আমি ভুল পথেই ছিলাম। এই বিয়ে করবো না। আমি আবার স্কুলে যেতে চাই। পরিবারের বোঝা নয়, পরিবারে মুখ উজ্জ্বল করতে চাই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পূর্বিতা চাকমা বলেন, বাল্য বিবাহ একটি দন্ডনীয় অপরাধ। আমি স্কুল ছাত্রীর বিয়ের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক তার বাড়িতে হাজির হই। সেখানে দেখতে পাই, গোপনে তাদের বাড়িতে বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। আমি তাদেরকে বুঝিয়ে বলি, পরে তারা নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন এবং বিয়ে করবেনা বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। সে আবার স্কুলে যাবে। আমি প্রধান শিক্ষককে বলে দিয়েছি। সে নিশুর পড়ালেখার ব্যাপারে সহযোগীতা করবে এবং স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহেদুল ইসলামকে দায়িত্ব দিয়েছি, যেন তাদের দিকে খেয়াল রাখে এবং ভবিষ্যতে অপ্রাপ্ত বয়সে যেন সে বিয়ের আসরে আর না বসে।

এদিকে এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহেদুল ইসলাম বলেন, আমাদের এলাকায় একটি বাল্য বিবাহের ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসে তা বন্ধ করে দিয়েছেন এবং আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন যেন তাদের খবর রাখি, আর যেন তারা এইরকম অন্যায় না করে।

তিনি আরো বলেন, নিশু এখন থেকে স্কুলে যাবে। সে লেখাপড়া করবে। আমরা তার খোঁজ-খবর রাখবো। এদিকে স্থানীয়রা জানান, ইউএনওর উপস্থিতি টের পেয়ে বর যাত্রীরা মাঝপথ থেকে পালিয়ে গেছে। ইউএনওর এমন কাজকে সাধুবাদ ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন তারা।