পরিস্থিতির সুযোগ নিচ্ছে এক শ্রেণির ব্যবসায়ী: বাণিজ্যমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির সুযোগ নিচ্ছে এক শ্রেণির ব্যবসায়ী। পণ্যমূল্য যে পরিমাণ বাড়ার কথা, তার চেয়ে অনেক বেশি বাড়িয়ে দিচ্ছেন তারা। সরকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার জন্য কাজ করছে।  আশা করা হচ্ছে ২/১ মাসের মধ্যে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। তবে দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে। যা নিয়ন্ত্রণের বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

বুধবার (১৭ আগষ্ট) টিসিবির ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রি করা পণ্য নিয়ে টিআইবি’র অভিযোগকে কেন্দ্র করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে তাতেই পরিবহন খরচ বাবদ চালের মূল্য ৫০ পয়সা বাড়তে পারে। কিন্তু সেটা ব্যবসায়ীরা কেজিতে ৪ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়েছে। একইভাবে অন্যান্য ক্ষেত্রেও দাম  বেড়েছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, পণ্যমূল্য পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে টিসিবির কার্যক্রম অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এখন থেকে নিয়মিত প্রতি মাসে পণ্য সরবরাহ করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, টিসিবির পণ্য বিক্রি নিয়ে টিআইবি যে অভিযোগ করেছে তা যথাযথ নয়। টিআইবি খুব সামান্য নমুনার ভিত্তিতে ভিত্তিহীন অভিযোগ করেছে।

ডিমের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ডিমের দাম নিয়ে আজই একটি মিটিং হবে। বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনে ডিম আমদানি করা হবে।

এসময় ভোজ্যতেলের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, বিশ্ব বাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমেছে, আবার ডলারের দাম বেড়েছে। এ দুটিকে বিবেচনায় নিয়ে একটি দাম নির্ধারণ করতে হবে। আমরা সেই চেষ্টাই করছি। খুব শিগগির তেলের দাম পুনর্নির্ধারণ করা হবে।

একটি ডিমের দাম ১৫ টাকায় পৌঁছেছে। বাজার নিয়ন্ত্রণে ডিম আমদানির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ডিম আমদানি করতে তো একটু সময় লাগবে। আমরা দেখি, যদি এমনটাই হয় যে সত্যি ডিম আমদানি করলে এটা কমবে, তাহলে আমরা ডিম আমদানির প্রক্রিয়ায় যাবো।’

ডিমের দাম নিয়ে বুধবারই একটি মিটিং হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সেখানে আলোচনা হবে কেন ডিমের দাম এমন হলো। তৃণমূলে কোনো সমস্যা হচ্ছে কিনা, আমরা সেগুলো দেখছি। বিভিন্ন সময় এমন অসুবিধা হয়েছে, সেগুলো আমরা অ্যাড্রেস করেছি। দু’চার/পাঁচদিনে সময় অবশ্য লেগেছে।’