ন্যাটো ইস্যুতে মিত্র দেশগুলোর প্রতি ‘স্পষ্ট’ বার্তা দিলেন এরদোগান

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যপদের জন্য ইতোমধ্যেই আনুষ্ঠানিকভাবে আবেদন করেছে রাশিয়ার দুই প্রতিবেশী দেশ সুইডেন-ফিনল্যান্ড। বরাবরই দেশ দুটির ন্যাটো সদস্য পদের বিরোধিতা জানিয়ে আসছে তুরস্ক। এবার দেশ দুটির ন্যাটোতে যোগদান নিয়ে মিত্র দেশগুলোর প্রতি স্পষ্ট বার্তা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

এরদোগান বলেন, তিনি মিত্র দেশগুলোর বলেছেন, ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ন্যাটোতে যোগদানের প্রস্তাবে তিনি সায় নেবেন না।

স্থানীয় সময় বুধবার রাতে দেওয়া এরদোগানের ওই সাক্ষাৎকার তার ‍টুইটার অ্যাকাউন্টে বৃহস্পতিবার পোস্ট করা হয়েছে।  সেখানে তাকে বলতে শোনা যায়, আমরা আমাদের নীতিতে অটল থাকব। আমরা মিত্রদের বলেছি, আমরা ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ন্যাটো সদস্যপদের ব্যাপারে সায় দেব না।

এসময় এরদোগান সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের বিরুদ্ধে ‘সন্ত্রাসীদের’ আশ্রয় দেওয়ার, অর্থায়ন করার এবং অস্ত্র সরবরাহ করার অভিযোগ তুলে বলেন, ন্যাটো একটি নিরাপত্তা জোট এবং এখানে সন্ত্রাসীদের প্রবেশ আমরা মেনে নিতে পারি না।

এর আগে  ন্যাটো সদস্য তুরস্কের পক্ষে সামরিক জোটে যোগদানের জন্য সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের পরিকল্পনাকে ইতিবাচকভাবে দেখা সম্ভব নয় জানিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, আমাদের ইতিবাচক মতামত নেই। স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলো সন্ত্রাসী সংগঠনের গেস্টহাউসের মতো।

এ সময় এরদোগান তুরস্কের আগের শাসক ১৯৫২ সালে গ্রিসকে ন্যাটো সদস্যপদের অনুমোদন দিয়ে ভুল করেছিলেন উল্লেখ করে বলেছিলেন, আমরা দ্বিতীয়বার একই ইস্যুতে ভুল করতে চাই না।

এরদোগান স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলোর বিরুদ্ধে কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি (পিকেকে) এবং চরম বামপন্থী রেভুলেশনারি পিপলস লিবারেশন পার্টি-ফ্রন্ট (ডিএইচকেপি-সি)  সদস্যদের আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ করেছিলেন।