নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠদানের অনুমতি পেলো কুকিমারা লোটাস শিশু সদন

প্রতিষ্টানে বিনামূল্যে পড়ছে শত শত গরীব শিক্ষার্থী

কাপ্তাই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গত মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানটি পরিদর্শন এবং মতবিনিময় করেন
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

ঝুলন দত্ত, কাপ্তাই (রাঙামাটি) প্রতিনিধি: রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার কাপ্তাই উপজেলাধীন ওয়াগ্গা ইউনিয়নে কুকিমারা এলাকায় স্থানীয় সুই প্রু কারবারি ও গংজ মার্মা এর দানকৃত সম্পত্তিতে শিক্ষানুরাগী ভান্তে ড: নাগাসেন ভীক্ষু ২০১৮ সালে গড়ে তুলেন লোটাস শিশু সদন আবাসিক উচ্চ বিদ্যালয়। প্রাথমিক বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় আরও আগে, ২০১২ সালে। চলতি বছরে প্রতিষ্ঠানটি নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক পাঠ দানের অনুমতি পেয়েছে বলে জানান কাপ্তাই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাদির আহম্মদ। তিনি গত মঙ্গলবার প্রতিষ্ঠানটি পরিদর্শন করেন এবং এই সংক্রান্ত বিষয়ে প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে মতবিনিময় করেন।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান ড: নাগাসেন ভীক্ষু জানান, পার্বত্য অঞ্চলে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়ার মহান উদ্দেশ্যে বড়ইছড়ি – রাঙ্গামাটি সড়কের পাশে পাহাড় ঘেরা নান্দনিক পরিবেশে স্থাপন করা হয়েছে লোটাস শিশু সদন। এখানে তিন পার্বত্য জেলার বিভিন্ন এলাকা হতে এসে সর্বস্তরের শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে পড়াশুনা, আবাসিক সুবিধা তথা থাকা-খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। সরকারী বিধিবিধানের আলোকে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালিত হচ্ছে বলে ড: ভীক্ষু জানান।

কাপ্তাই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাদির আহম্মদ বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেন। তিনি জানান যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ‘লোটাস শিশু সদন আবাসিক বিদ্যালয়’ স্থাপনে সম্মতি জ্ঞাপনের প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড চট্টগ্রাম উক্ত বিদ্যালয়টিতে নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠদানের অনুমতি প্রদান করেছেন।

বিদ্যালয়টিতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা যাতে সরকারী সকল সুবিধা পেতে পারে এবং প্রতিষ্ঠানটিতে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা যায় সে বিষয়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে মতবিনিময় হয়েছে। লোটাস শিশু সদন আবাসিক বিদ্যালয়ের নামে BANBEIS এর আওতায় Educational Institute Identification Number প্রাপ্তির আবেদন প্রক্রিয়াধীন। মানসম্মত শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হলে এতদঞ্চলে শিক্ষা বিস্তারে লোটাস শিশু সদন বিদ্যালয় যুগান্তকারী ভুমিকা রাখবে বলে নাদির আহম্মদ আশা করেন। তিনি বিদ্যালয়টির সার্বিক উন্নতি কামনা করেন।