দুই চৌধুরীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ (ভিডিওসহ)

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

দুজনই চৌধুরী বংশের লোক সেই সাথে দুইজনই আওয়ামী লীগের৷ একজন জাতীয় সংসদের হুইপ,পটিয়ার সংসদ সদস্য শামশুল আলম চৌধুরীর ছেলে নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন৷ শারুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সদস্য সেই সাথে চট্টগ্রাম চেম্বারের পরিচালক ৷ অপর জন নগর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক, চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব দিদারুল আলম চৌধুরী। এই দুই চৌধুরীর ব্যক্তিগত ফোনালাপের বিষয়টি টক অব দা টাউনে পরিণত হয়েছে৷ হুইপ শামসুল আলমকে যুবদল ও জাতীয় পার্টি থেকে আগন্তুক উল্লেখ করে মন্তব্যের পর হুইপ পুত্র শারুনের ‘চোয়ারাই দাঁত ফেলাই দিয়ুম’ বলে পালটা মন্তব্য নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের মাঝেও সৃষ্টি হয়ে মিশ্র প্রতিক্রয়া৷ এই ফোনালাপ ভাইরাল হওয়ার পর হুইপ পুত্র তার ফেসবুকে পোস্ট করা এক ভিডিও বার্তায় দাবী করেন, তার বাবাকে নিয়ে আপত্তি জনক কথা বলে তাকে রাগানো হয়েছিলো।

তিনি বলেন, তার বাবাকে নিয়ে দিদারুল আলম চৌধুরী যেসব কথা বলেছিলেন সেগুলো এডিট করে বাদ দেয়া হয়েছে। দিদারুল আলমকে ষড়যন্ত্রকারী আখ্যা দিয়ে শারুন বলেন, আমার বাবাকে নিয়ে উনি নানান বাজে মন্তব্য করে কথা বলছিলেন, ছেলে হিসেবে কি আমি কিছুই বলবো না ? ভিডিও বার্তায় শারুন সাংবাদিকদের ঐ রেকর্ডটি বিশ্বাস না করার আহবান জানিয়ে বলেন, যে রেকর্ডটি ছাড়া হয়েছে তা প্রফেশনাল এডিটর দিয়ে এডিট করা। ওখানে আমার বাবাকে নিয়ে করা উনার সেই কথা গুলো নেই।

তবে এই বিষয়ে দিদারুল আলম চৌধুরী সিপ্লাসকে জানান, তার সাথে সারুনের সাথে কতোক্ষন কথা হয়েছে সেটা কল লিস্টে আছে। এসময় তিনি কল লিস্ট ও কল রেকর্ডের সময় সিপ্লাসকে দেখিয়ে স্বপক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বলেন, “এই রেকর্ডে আমি কোন এডিট করিনি৷ আমার সেই রেকর্ডিংটি ১৭ই সেপ্টেম্বর তারিখের। সেটিকে আমি গোয়েন্দা সংস্থা, পুলিশ কমিশনার ও সিটি মেয়রকে শেয়ার করেছি।

দিদারুল আলম চৌধুরী দাবী করেন, যে অনলাইন পোর্টাল রেকর্ডটি পাবলিশ করেছে আমি তাদের কোন কপি দেইনি৷ সম্ভবত আমি যাদের দিয়েছি তাদের মধ্যে কেউ রেকর্ডটা মিডিয়াকে দিয়েছে৷” যেহেতু তারা উভয়ই একই দলের লোক তাই বিষয়টি দলীয় ফোরামে সমাধান আশা করছেন দিদারুল আলম চৌধুরী৷