তিন র‌্যাব সদস্য ও দুই নারী সোর্সকে ১০ ঘন্টা পর ফেরত দিয়েছে বিএসএফ

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার আশাবাড়ি সীমান্ত থেকে তিন র‌্যাব সদস্য ও দুই নারী সোর্সকে ধরে নিয়ে যাওয়ার ১০ ঘন্টা পর ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)।

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার আশাবাড়ি সীমান্তের ২০৫৯নং পিলারের ১০ নম্বর গেট এলাকা থেকে তাদের ধরে নিয়ে যায় বিএসএফ।

পরে বিকাল ৫টায় ৬০ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) উর্দ্বতন কর্মকর্তা ও বিএসএফের মধ্যে এক ঘণ্টা পতাকা বৈঠকের পর আটক তিন র‌্যাব সদস্য ও দুই নারী সোর্সকে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়।

৬০ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের সংকুচাইল ক্যাম্পের সুবেদার নুরুল ইসলাম র‌্যাব ১১’র তিন সদস্য ও সোর্সদের গ্রহণ করেন।

বিএসএফের হাতে আটক র‌্যাব সদস্যরা হলেন, কনস্টেবল আব্দুল মতিন, রিগ্যান বড়ুয়া ও সৈনিক মো. ওয়াহেদ।

র‌্যাব সদস্যদের কাছে থাকা একটি পিস্তল, ১টি ম্যাগজিন, আট রাউন্ড গুলি, দুটি হাতকড়া ফেরত দিয়েছে বিএসএফ।

র‌্যাব ১১’র এসপি মুহিদুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় মাদক মামলার আসামিকে আটক করে নিয়ে আসার সময় ভারতীয় বিএসএফ র‌্যাব সদস্যদের আটক করে নিয়ে যায়।

বিজিবির সংকুচাইল ক্যাম্পের সুবেদার নুরুল ইসলাম জানান, আশাবাড়ি ভারতীয় অংশে বাড়ি দুলা মিয়ার ছেলে আবুল খায়েরকে আটক করতে যায় র‌্যাব ১১’র একটি টিম। ওই বাড়িটি নো-ম্যানস ল্যন্ডের ১ শ গজের বাইরে ভারতীয় অংশে। আবুল খায়েরকে আটক করে নিয়ে আসার সময় স্থানীয় ভারতীয় লোকজন র‌্যাব সদস্যদের আটক করে বিএসএফকে খবর দেয়। বিএসএফ সদস্যরা র‌্যাব সদস্য ও সোর্সদের তাদের ক্যাম্পে নিয়ে যায়।

তবে সীমান্তের ভেতরে আসামি ধরতে যাবার বিষয়ে কিছু বলেননি বিজিবি ও র‌্যাব।

সকালে র‌্যাব সদস্যদের আটকের পর বেলা ১১টার সময় বিএসএফকে আনুষ্ঠানিক ভাবে চিঠি দিয়ে পতাকা বৈঠকের আমন্ত্রণ জানায় বিজিবি। প্রায় ১০ ঘণ্টা অপেক্ষার পর বিকাল ৪টায় ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার আশাবাড়ি সীমান্তের ২০৫৯ নম্বর পিলার সংলগ্ন এলাকায় এক ঘণ্টা পতাকা বৈঠকের পর তিন র‌্যাব সদস্য ও দুই সোর্সকে বিজিবির কাছে হস্তান্তর করে বিএসএফ।

এ সময় র‌্যাব ১১, ৬০ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও কুমিল্লা জেলা পুলিশের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন বলে জানিয়েছেন ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাজাহান চৌধুরী।