জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর জানাযায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধায় দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরীকে শেষ বিদায় জানানো হয়েছে।
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধায় দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরীকে শেষ বিদায় জানানো হয়েছে।

আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির নেতৃবৃন্দসহ শত শত সাধারণ মানুষ জানাযায় অংশ নেন।

প্রথম দফা নামাজে জানাযা নগরের জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদ ময়দানে বুধবার (৯ জুলাই) সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয়।এতে ইমামতি করেন জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা আহমদুল হক। জানাযায় বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, সংসদ সদস্য এম  এ লতিফ, মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন, সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক আবু সুফিয়ান, কর্ণফুলী উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক এস এম মামুন মিয়া প্রমুখ অংশ নেন।

এছাড়া বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা, বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ জানাযায় অংশ নেন। পরে বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদলসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে এ বিএনপি নেতার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়।

জানাযা শেষে জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বাঁশখালীর জলদী হাইস্কুল মাঠে। সেখানে দুপুর ২টায় দ্বিতীয় জানাযা এবং বিকেল ৩টায় গুনাগরী ডিগ্রি কলেজ মাঠে তৃতীয় জানাযা হবে। জানাযা শেষে মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (৮ নভেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জাফরুল ইসলাম চৌধুরী মারা যান। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে, দুই মেয়ে ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।