চীনের মহড়ার পর সর্বাধুনিক যুদ্ধবিমান প্রকাশ্যে আনলো তাইওয়ান

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: হুমকি উপেক্ষা করে মার্কিন স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফর করায় নজিরবিহীন মহড়া চালিয়েছে চীন। মূলত তাইওয়ানের চারপাশে সামরিক শক্তি প্রদর্শন করে শি জিনপিংয়ের সরকার। এরপরই সর্বাধুনিক যুদ্ধবিমান প্রকাশ্যে আনলো তাইওয়ান প্রশাসন। স্ট্রেট টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

চীনের আগ্রাসন ঠেকানোর অনুকরণে তাইপেও নিজস্ব মহড়া চালায়। ‘যুদ্ধপ্রস্তুতি’ অনুশীলনের অংশ হিসেবে গতকাল বুধবার তাইওয়ানের পূর্বাঞ্চলীয় হুয়ালিয়েন কাউন্টির বিমানঘাঁটিতে এফ-১৬ভি যুদ্ধবিমানে জাহাজবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র যুক্ত করা হয়।

তাইওয়ানের বিমানবাহিনীর তথ্য অনুযায়ী, ছয়টি এফ-১৬ভি যুদ্ধবিমান রাতে অনুসন্ধান ও প্রশিক্ষণ মিশনের জন্য উড্ডয়ন করে, যার মধ্যে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত ছিল।

এক বিবৃতিতে বাহিনীটি জানায়, সাম্প্রতিক সামরিক মহড়ার মাধ্যমে চীন হুমকি তৈরি করেছে। সে কারণে সতর্কতা হিসেবে সবত্রই যুদ্ধ ক্ষেত্র ও যেকোনো সময় প্রশিক্ষণ এই ধারণা প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

তাইওয়ানের আকাশ ও সমুদ্রসীমায় চীনের সামরিক মহড়াকে উসকানিমূলক ও কাণ্ডজ্ঞানহীন বলছে হোয়াইট হাউজ। স্থানীয় সময় শনিবার (৬ আগস্ট) হোয়াইট হাউজের এক মুখপাত্র বলেন, ‘তাইওয়ানের স্থিতিশীলতা নষ্ট করতে চীনের এই প্রচেষ্টা। চীন উসকানিমূলক ও কাণ্ডজ্ঞানহীন কাজ করছে। চীনের হিসাব-নিকাশে ভুল রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তাইওয়ান স্বতন্ত্র দাবি করলেও চীন তাইওয়ানকে নিজেদের বলে মনে করে। এর আগে চীনের প্রেসিডেন্ট তাইওয়ানকে একত্র করার ঘোষণাও দেন।