চন্দনাইশে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টে সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন চ্যাম্পিয়ন

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

চন্দনাইশ উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে (বালক অনূর্ধ্ব-১৭) চ্যাম্পিয়ন হয়েছে সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ একাদশ।

রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বিকালে উপজেলার গাছবাড়িয়া স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনাল খেলা নির্ধারিত সময়ে গোলশূণ্য ড্র হওয়ার পর শ্বাসরুদ্ধকর ট্রাইবেকারে সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন ৭-৬ গোলে বৈলতলী ইউনিয়নকে পরাজিত করে।

খেলা শেষে প্রধান অতিথি স্থানীয় সংসদ সদস্য মোঃ নজরুল ইসলাম চৌধুরী চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দল সহ অন্যান্যদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

চন্দনাইশ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিবেদিতা চাকমার সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মতিয়ুর রহমান, চন্দনাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কেশব চক্রবর্তী, গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান মোঃ আবদুল খালেক, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোঃ দেলোয়ার হোসেন।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাঞ্চনাবাদ ইউ.পি চেয়ারম্যান মো. মুজিবুর রহমান, বৈলতলী ইউ.পি চেয়ারম্যান এডভোকেট আনোয়ারুল মোস্তফা চৌধুরী দুলাল, সাতবাড়িয়া ইউ.পি চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান, উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা এএসএম মনির উদ্দীন, উপজেলা একাডেমিক সুপার ভাইজার বিপিন চন্দ্র রায়, সাবেক জাতীয় ফুটবলার আসকর খান বাবু, উপজেলার স্কাউট সম্পাদক শিক্ষক আবুল বশর, খাঁনহাট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি চৌধুরী আমির মোঃ সাইফুদ্দীন, চন্দনাইশ পৌরসভা যুবলীগ সম্পাদক লোকমান হাকিম প্রমূখ।

খেলায় ধারা বিবরণী দেন প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নান আজাদ, আমিনুল ইসলাম ও সাংবাদিক মোঃ কামরুল ইসলাম মোস্তফা।

হ্যাপি দাশের সঞ্চালনায় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে নজরুল ইসলাম চৌধুরী এম.পি বলেন, “খেলাধুলা করলে মনে প্রশান্তি বাড়ে। অশুভ চিন্তাচেতনা দুর হয়ে যায়। সমাজ অবক্ষয়মুক্ত রাখতে খেলাধুলার বিকল্প নাই। মুক্তিযুদ্ধ ও অসম্প্রদায়িকতার চেতনা সৃষ্টিতে তরুণ প্রজন্মকে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলাকে হাতিয়ার করে তুলতে হবে। শরীর সুস্থ্য না থাকলে সুন্দরভাবে বেঁচে থাকা যায় না। ভাল থাকতে হলে অবশ্যই খেলাধুলা করতে হবে। পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধুলা করলে মাদকের দিকে ঝুঁকবে না শিক্ষার্থীরা।”