চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের অরক্ষিত নালা,নর্দমা ও খাল সুরক্ষিত করার নির্দেশ

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম নগরের অরক্ষিত নালা-নর্দমা ও খালগুলোতে নিরাপত্তা বেষ্টনী দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) ও সিটি করপোরেশনের প্রকৌশল বিভাগকে এই বর্ষা মৌসুমেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার তাগিদ দেন তিনি।

গত বছরে বৃষ্টির সময় নগরের বিভিন্ন এলাকায় অরক্ষিত নালা-নর্দমা ও খালে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী, শিশু ও সবজি বিক্রেতাসহ ৫ জনের মৃত্যু হয়। এই নিয়ে নগরবাসীর মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। সিটি করপোরেশন ও সিডিএর গাফিলতির কারণে এই ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে সরকারের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছিল।

সাধারণ সভায় মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, নগরে জলজটের কারণে রাস্তা ও নালা একাকার হয়ে আগে প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এবার যাতে এই ধরনের ঘটনা পুনরাবৃত্তি না হয়। তাই যেসব জায়গায় নিরাপত্তা বেষ্টনী দেওয়া দরকার তা দিতে হবে। ভবিষ্যতে যাতে এই ধরনের মৃত্যু না হয় সে জন্য সজাগ থাকতে প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামকে নির্দেশ দেন মেয়র।

বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আইন মেনে না চললে প্রয়োজনে ২ লাখ টাকা জরিমানা এবং ২ বছর কারাদণ্ড দেওয়ার হুমকি দেন মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। জলাবদ্ধতা নিরসনে স্বল্প মেয়াদে নগরের ১৮টি ওয়ার্ডে বিশেষ ক্র্যাশ প্রোগ্রাম চলছে বলে সভায় জানান মেয়র।

পবিত্র ঈদুল আজহায় নগরকে আট ঘণ্টার মধ্যে পরিচ্ছন্ন করার জন্য সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানান মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। তিনি সভায় বলেন, নগরবাসীর পশুর বর্জ্য নির্দিষ্ট জায়গায় রাখার জন্য ১ লাখ ব্যাগ সরবরাহ করা হবে। গত বছর কোরবানির বর্জ্য দ্রুত সময়ের মধ্যে পরিষ্কার করে সুনাম অর্জন করেছে করপোরেশন। তা ধরে রাখতে হবে এবারও।

সভায় প্রত্যাশিত গৃহকর আদায় না হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন মেয়র। এই ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য রাজস্ব বিভাগকে নির্দেশ দেন তিনি।

সভায় সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিভিন্ন সেবা সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।