চট্টগ্রামের ডিসি কি প্রতিহিংসার শিকার?

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান।
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:  চট্টগ্রামের জঙ্গল সলিমপুরের শত শত কোটি টাকার সম্পদ উদ্ধার করেছেন তিনি। এটা আগের কোন ডিসি সাহস করেনি।

সম্প্রতি জেলা প্রশাসকের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের পদক্ষেপের ঘটনায় স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধ সংসদের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেন বলেন, ‘ডিসি সাহেব মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে পালন করছেন। উনি চট্টগ্রামের দিনমজুর, কৃষক-শ্রমিক মুক্তিযোদ্ধাসহ সকলের দোরগোড়ায় পৌঁছে গেছেন। দুর্নীতিবাজ রাঘব বোয়ালদেরকে গ্রেপ্তার করেছেন। হাজার কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি দখলমুক্ত করেছেন। এ কারণেই ঈর্ষান্বিত হয়েই তাকে হেনস্তা করা হচ্ছে। আমরা এসব ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে আগামী শনিবার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ করব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি দেব।’

জেলা প্রশাসকের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে মোহাম্মদ মমিনুর রহমান প্রায় এক হাজার ৩০০ কোটি টাকার দখলকৃত জমি উদ্ধার করেছেন। বিভিন্ন দপ্তরে দুর্নীতি বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ১৭টি মামলা দিয়ে পুরো সিন্ডিকেট ভেঙে দিয়েছেন। অনিয়ম বিরোধী এসব কর্মকাণ্ডের কারণে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি চক্র ক্রমাগতভাবে তার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। সুযোগ বুঝে মোনাজাত ইস্যুকে সামনে এনে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা প্রতিশোধ নিতে চায়। স্থানীয়দের ভাষ্য, এমন সৎ অফিসার খুবই প্রয়োজন। যিনি যেকোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার।

এ বিষয়ে এনজিও কর্মী ও সংগঠক জেসমিন সুলতানা পারু বলেন, ’তার মতো অফিসার চট্টগ্রামবাসী এর আগে পায়নি। তিনি আমাদের জন্য আশীর্বাদ। কারণ প্রভাবশালীরা বরাবরই মানুষের অধিকার হরণ করেছে। তিনি (ডিসি) আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত করেছে। তার ক্ষতি হওয়া মানে গোটা চট্টগ্রামবাসীর ক্ষতি হওয়া। আমরা তার জন্য প্রয়োজনে আন্দোলনে যাব। বিশেষ একটি মহল ডিসিকে হেনস্থা করার ষড়যন্ত্র করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ, তাঁর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ ঠুনকো। এটি যে গভীর ষড়যন্ত্র তা তদন্ত করে প্রকৃত সন্ত্রাসী ও দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।’

এদিকে জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ডিসি হিসেবে মোহাম্মদ মমিনুর রহমান যোগদানের পর এ পর্যন্ত ১৩৬টি দুর্নীতি বিরোধী অভিযান পরিচালনা করেছেন। কোনো কোনো অভিযান ছদ্মবেশেও করেছেন তিনি। ভূমি অফিসের দুর্নীতিবাজ ১৮৩ জনকে অফিস থেকে বের করে দিয়েছেন। যারা ভূমি দস্যুদের নানাভাবে সুবিধা দিয়ে আসছিল। বিপ্লবি যতিন্দ্র মোহন সেনের দখল হয়ে যাওয়া বাড়ি তিনি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দখলমুক্ত করেছেন। যার বর্তমান মূল্য ১২৭ কোটি টাকা। কালুর ঘাট সেতুর কাছে ১০৬ একর জায়গা উদ্ধার করেছেন তিনি। যার বর্তমান মূল্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। এই জায়গায় একটি জাদুঘর হচ্ছে। পটিয়ায় ৮০০ একর জায়গা উদ্ধার করেছেন তিনি।

স্থানীয়রা বলছে, ডিসি মমিনুর সীতাকুণ্ড উপজেলার জঙ্গল সলিমপুরের প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকা মূল্যের ৩ হাজার ১০০ একর সরকারী খাস জমি উদ্ধার কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন। এজন্য স্থানীয় সন্ত্রাসীরা তার বিরুদ্ধে ফান্ড ক্রিয়েট করে উঠে পড়ে লেগেছে। তাকে বিভিন্ন সময় থ্রেট করা হয়েছে। এ সব অনিয়ম বিরোধী কর্মকাণ্ডের কারণে একটি চক্র ক্রমাগতভাবে ওনার বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তারই বহিঃপ্রকাশ আজকের ঘটনা।

এ বিষয়ে কথা হয় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমি কোনো অপরাধ করিনি। এসব বড় উদ্যোগ নিতে কখনো ভয় পাইনি। আমাকে কিছুদিন আগেও থ্রেট করা হয়েছে, আমার বিরুদ্ধে পত্রিকায় লেখা হবে। আমি বলেছি, ডিসি হিসেবে কোনো অপরাধ করিনি। আপনারা অপরাধ খুঁজে পেলে লিখতে পারেন। আমি এ পর্যন্ত দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে প্রায় এক হাজার ৩০০ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার করে সরকারি দখলে রেখেছি। এ কারণে চক্রান্তকারীদের চক্ষুশুল হয়েছি। জঙ্গল সলিমপুরের ঘটনার মামলায় ইয়াসিন আলী নামের এক প্রভাবশালীকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি। সে এতটা ভয়ঙ্কর যে, আমার আশঙ্কা সে ছাড়া পেলে আমাকে ফিজিক্যালি এটাক করবে।’

গত বৃহস্পতিবার নিজ কার্যালয়ে একটি দোয়ায় অংশ নেওয়ার অভিযোগ এনে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার পদ থেকে জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ মমিনুর রহমানকে সরিয়ে নেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে মোনাজাত করা ও ভোট চাওয়ার অভিযোগ ওঠায় এই সিদ্ধান্ত নেয় সাংবিধানিক এই সংস্থাটি।