খালেদাকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে বিএনপির আহ্লাদের শেষ নেই- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ বক্তব্যকে রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত বলেও দাবি করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অনৈতিক, অবৈধ ও রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে দেশনেত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করছেন অনির্বাচিত সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া ন্যূনতম চিকিৎসা সুবিধা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছেন। ডাক্তাররা বারবার বিদেশে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য বললেও সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে কর্ণপাত করছে না। কী দুর্ভাগ্য এই দেশ এবং জাতির, দেশে একটি অনির্বাচিত সরকারের প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় বসে আছেন। যার ন্যূনতম রাজনৈতিক শিষ্টাচার নেই। তিনি গতকাল (মঙ্গলবার) খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে যে ধরনের উক্তি করেছেন আমরা ভাবতেও পারি না প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারটা বৈধ হোক আর অবৈধ হোক এ ধরনের উক্তি কেউ করতে পারে। এর একটাই কারণ- প্রতিমুহূর্তে তিনি খালেদা জিয়াকে হিংসা করেন তাকে সহ্য করতে পারেন না।

বুধবার (৩১ আগস্ট) নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী যুবদল এ দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে।

 

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে দেশে ন্যায়বিচার ভুলুণ্ঠিত হয়েছে। তারা দেশের সব অর্জন ধ্বংস করে দিয়েছে। হত্যা-গুম-খুন করে দেশকে জিম্মি করে রেখেছে। তাই বিএনপির সামনে আন্দোলনের মাধ্যমে প্রতিরোধ গড়ে তোলা ছাড়া বিকল্প পথ খোলা নেই।

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আসুন নিজেদের সংগঠিত করে জনগণকে সাথে নিয়ে দুর্বার গণআন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে পরাজিত করি। সরকারকে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরে বাধ্য করতে হবে।

এসময় ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি আমান উল্লাহ আমান, দক্ষিণের সভাপতি আব্দুস সালাম ও যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।