ক্যাসিনো সেলিমের বাসায় অভিযান

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

বাংলাদেশে অনলাইনে ক্যাসিনো ব্যবসার মূল হোতা সেলিম প্রধানের বাসায় এবার অভিযান চালিয়েছে র‍্যাব।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর বনানীতে ওই বাড়িতে অভিযান শুরু করা হয়।

এর আগে সোমবার রাত থেকেই বাসাটি ঘিরে রেখেছিলে র‍্যাব।

সেলিম প্রধানের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই এই বাড়িতে অভিযান চালানো হয় বলে পরিবর্তন ডটকমকে জানান র‍্যাবের লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া উইংয়ের সিনিয়র সহকারী পরিচালক এএসপি মিজানুর রহমান।

এর আগে সোমবার রাতে বিমানবন্দর থেকে সেলিমকে আটকের পর গুলশান-২’এ তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালায় র‍্যাব-১। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি মদ, নগদ টাকা ও বিদেশি মুদ্রা জব্দ করা হয়।

র‍্যাব সূত্রে জানা গেছে, সেলিম প্রধান বাংলাদেশে অনলাইন ক্যাসিনোর কান্ট্রি হেড। ক্যাসিনো বিরোধী অভিযান শুরুর পরপরই তাকে নজরদারিতে রাখা হয়েছিল। ক্যাসিনো ব্যবসা ছাড়াও টেন্ডারবাজি ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে অস্ত্র ও গরু চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত এই সেলিম। এছাড়া তিনি রাজধানীর বিভিন্ন স্পা, বিউটি পার্লার ও পার্টিতে ভিআইপিদের মনোরঞ্জনের জন্য তরুণী সরবরাহ করতেন।

চারদলীয় জোট সরকারের সময় তারেক রহমান ও তার ব্যবসায়িক অংশীদার গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা ছিল। তারেকের বিভিন্ন পার্টিতে তরুণী সরবরাহের কাজও করতেন এই সেলিম।

সেলিম প্রধানের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের নাম প্রধান গ্রুপ। এই কোম্পানিরই একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান পি২৪ গেমিং (P24 Gaming)। জানা গেছে এই পি২৪ গেমিং’র মাধ্যমেই সেলিম বাংলাদেশে অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। গুলশান-২’র ৯৯ নম্বর রোডের ১১/এ নং বাসায় প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়, সেখানেই সোমবার রাতে র‍্যাব প্রথম অভিযান শুরু করে।

এর আগে সোমবার দুপুরে অনলাইনে ক্যাসিনো পরিচালনার অভিযোগে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ব্যাংককগামী থাই এয়ারওয়েজ থেকে সেলিম প্রধানকে আটক করে র‍্যাব।

থাই এয়ারওয়েজের টিজি-৩২২ নম্বর ফ্লাইটটি ছাড়ার আগ মুহূর্তে বিজনেস ক্লাসের ওই যাত্রীকে সেখান থেকে আটক করে নামিয়ে আনে র‍্যাব। র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন্স) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার পরিবর্তন ডটকমকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, অনলাইনে ক্যাসিনো পরিচালনা করে আসছিলেন এই সেলিম প্রধান। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ফ্লাইট ছাড়ার আগমুহুর্তে তাকে আটক করা হয়।

ক্যাসিনো থেকে অর্জিত আয় এই ব্যক্তি বিদেশে পাচার করে আসছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।