কক্সবাজার জেলায় শ্রেষ্ঠ সার্কেল সম্মাননা পেলেন চকরিয়া সার্কেল কাজী মতিউল ইসলাম

CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ সার্কেল হিসেবে সম্মাননা পেলেন সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (চকরিয়া সদর সার্কেল) কাজী মো: মতিউল ইসলাম।

তিনি চকরিয়া-পেকুয়া সার্কেল হিসেবে যোগদানের পর থেকে এ দুই উপজেলার ২৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় মাদক দ্রব্য উদ্ধার, গ্রেপ্তারী পরোয়ানা তামিল, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই রোধ করার ভূমিকাসহ এলাকায় আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন।

কর্ম এলাকায় পুলিশ প্রশাসনে অনন্যা অবদান রাখায় সার্বিক বিষয় পর্যালোচনা পূর্বক সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মো: মতিউল ইসলামকে সম্মাননা ক্রেস্ট দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়।

রবিবার (২৯সেপ্টেম্বর) কক্সবাজার জেলা পুলিশ লাইন্সের ড্রিল শিডে মাসিক কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন কক্সবাজার পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন বিপিএমবার।

উক্ত মাসিক কল্যাণ সভায় বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুলিশ কর্মকর্তাদের পুলিশী কার্যক্রমকে তরান্বিত করার জন্য অর্থ ও ক্রেস্ট দিয়ে শ্রেষ্টত্বের জন্য পুরস্কৃত করা হয়।  চকরিয়া-পেকুয়া সার্কেল আগস্ট মাসের পারফরমন্সে সামগ্রিক কার্যক্রমে কাজের দৃষ্টান্ত স্থাপন করায় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে শ্রেষ্ঠ সার্কেল হিসেবে সনদ ও সম্মাননা প্রদান করা হয় চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মো: মতিউল ইসলামকে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো.ইকবাল হোছাইন , অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাহিদ আদনান তাইয়্যান ( উখিয়া সার্কেল), সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম (ডিএসবি), সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রতন দাশ গুপ্ত ( মহেশখালী সার্কেল) ও জেলার আওতাধীন সকল থানার অফিসার ইনচার্জসহ বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তাগণ।

জেলা পুলিশের এ সম্মাননা প্রাপ্তিতে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (চকরিয়া সদর সার্কেল) কাজী মো: মতিউল ইসলাম বলেন, তিনি যোগদানের পর থেকে চকরিয়া-পেকুয়ায় মাদকের বিরুদ্ধে ঘোষিত জিরো টলারেন্স বাস্তবায়ন, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক ও উন্নতকরণ।

জঙ্গীবাদ, ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ ও মাদকমুক্ত সুন্দর দেশ গঠনে পুলিশের কার্যক্রমকে অারো তরান্বিত করতে সুযোগ্য পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসাইনের দিক নির্দেশনায় মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছি। এছাড়াও দেশের একজন সু-নাগরিক হিসেবে সুন্দর বাসযোগ্য মডেল সার্কেল রুপান্তরিত এবং উন্নত সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলাদেশ গড়তে আমার যাবতীয় উন্নয়নমূলক কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।