উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হলেন রেল কর্মচারী!

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের অপূর্ণাঙ্গ কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হয়েছে। তবে সেই কমিটিতে অছাত্র, বিবাহিত ও চাকরিজীবীসহ বিতর্কিতদের স্থান করে দেওয়ায় আলোচনা-সমালোচনার শেষ নেই।

এরই মধ্যে জানা গেল, সেই কমিটির সহ-সভাপতি করা হয়েছে রেলওয়ের একজন কর্মচারীকে। যিনি চার বছর ধরে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সদর দপ্তর চট্টগ্রামের সিআরবি ভবনে সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক দপ্তরের অফিস সহকারী হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তার নাম মো. জুবায়ের ইসলাম। তিনি রেলওয়ে শ্রমিক লীগের একাংশের কমিটির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের ছেলে। তার বাড়িও আবার চট্টগ্রামে নয়। ফলে চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের কমিটিতে তার পদ পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন ওঠেছে।

জুবায়েরের বাড়ি লক্ষ্মীপুর জেলার ফতেহ ধর্মপুর এলাকার ৭ নম্বর ওয়ার্ডে। পিতার চাকরি সূত্রে পরিবারের সঙ্গে চট্টগ্রামে থাকেন তিনি।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, কোনো চাকরিজীবীকে ছাত্রলীগের পদ-পদবি দেওয়ার সুযোগ নেই।

যদিও রেলে চাকরির বিষয়টি অস্বীকার করেন জোবায়ের। তিনি জানিয়েছেন, এক সময় তিনি অস্থায়ী ভিত্তিতে রেলে চাকরি করতেন। এখন সেই চাকরি করেন না। তিনি আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএতে পড়েন। সেখানেও তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

রেলে জোবায়েরের সঙ্গে কাজ করেন এমন কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে গণমাধ্যমকে বলেন, জোবায়ের আর আমি সিআরবি ভবনের দ্বিতীয় তলায় সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক দপ্তরে এক সঙ্গে চাকরি করি। ২০১৮ সালে একই সঙ্গে আমাদের চাকরি হয়েছে। এখনো আমরা এক সঙ্গে কাজ করি।

এ ব্যাপারে জানতে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন তপু ও সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিমের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

তবে নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে নতুন কমিটির এক সহ-সভাপতি বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটি জেলা ছাত্রলীগের কতিপয় নেতার সঙ্গে কথা বলে বিভিন্ন জনকে সংগঠনের বিভিন্ন পদ দিয়েছেন। যাচাই-বাছাই না করে পদ দেওয়ায় এখন সমস্যা তৈরি হয়েছে। এমনকি চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত নয়, বাড়িও চট্টগ্রামে নয় এমন ব্যক্তিকেও পদ দেওয়া হয়েছে।

সম্মেলনের সাড়ে চার বছর পর চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের ৩১৬ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ এক বছর মেয়াদি এই কমিটি ঘোষণা করে।