আমরা বিদ্যুতের দাম বাড়াই না, সমন্বয় করি: প্রতিমন্ত্রী

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, সবাই বলে বিদ্যুতের দাম বাড়ছে। আসলে বিদ্যুতের দাম আমরা কোনোবারই বাড়াই না, সমন্বয় করি। সেই সমন্বয়টা সাশ্রয়ী কি না সেটাই আমাদের দেখতে হবে। সেই বিষয়টাই আমরা আগামীতে লক্ষ্য রাখবো। এরকম কিছু প্রধানমন্ত্রী করবেন না, যেটা জনগণের ওপর একটা ভার বহন হবে।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) আয়োজিত নাগরিক সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি না করে আর্থিক ঘাটতি মোকাবিলায় বিকল্প প্রস্তাব উত্থাপন করেন ক্যাবের সহ-সভাপতি ও জ্বালানি উপদেষ্টা ড. শামসুল আলম।

নাগরিক সভায় প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, আমাদের ‘টার্গেট ফিক্সড’ করতে হবে যে কাদের জন্য আমরা ভর্তুকি দেবো, কাদের জন্য আমরা সমন্বয় করবো। কতটুকু সাশ্রয়ী আমরা করবো। এই মুহূর্তে সারাবিশ্বেই যে অবস্থা, জ্বালানি ও বিদ্যুতের দাম ঠিক রাখা কঠিন। এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন দেশকে তাদের আয় ও সংগতির ওপর নির্ভর করে তাদের সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

ভর্তুকি প্রশ্নে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার ভর্তুকি দেয়, আমি মনে করি এটা একটা ইনভেস্টমেন্ট। ইনভেস্টমেন্ট এ কারণেই করে, যে পরিমাণ ইউটিলিটি বিল ভোক্তা সেভ করবেন, সেই পরিমাণ অর্থটা যেন তিনি তার অন্য ক্ষেত্রে ব্যয় করতে পারেন।

তিনি বলেন, আমাদের একটা লাইফলাইন আছে। এক কোটি ৪০ লাখের ওপর একটা বৃহৎ জনগোষ্ঠী গ্রাহক আছে, যাদের আমরা দুই টাকার কিছুটা ওপরে বিদ্যুৎ চার্জ করি। বিদ্যুতের দাম যদি ক্যাবের কথায় ৭ টাকা রাখতে হয়, তাহলে উনারা কীভাবে ব্যবস্থা করবেন। প্রশ্ন আসে, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে আমরা (সাশ্রয়ী মূল্যে) দিচ্ছি কি না। হ্যাঁ আমরা সেটা দিচ্ছি।

নসরুল হামিদ বলেন, আমাদের আরেকটা টার্গেটেড জনগোষ্ঠী হলো কৃষক। সারে আমরা ব্যাপকভাবে বিদ্যুৎ ও গ্যাস দিচ্ছি, সেখানে সরকার বড় একটা ভর্তুকি দিয়ে আসছে। সেটা দেওয়ার ফলেই কোভিডকালীনও খাদ্যের অভাবে ভোগেনি দেশ।

শতভাগ বিদ্যুতায়নের কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা বলেছিলাম শতভাগ বিদ্যুতায়ন করবো। ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যেই আমরা শতভাগ বিদ্যুতায়ন করেছি। আমাদের এমন কোনো অঞ্চল নেই, যেখানে বিদ্যুৎ পৌঁছায়নি।

নাগরিক সভায় সভাপতিত্ব করেন ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান। বক্তব্য রাখেন ক্যাবের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ও জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এম শামসুল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক বদরুল ইমাম, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন প্রমুখ।