আজ মহাষষ্ঠী, শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: আজ মহাষষ্ঠী, হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। উলুধ্বনি, শঙ্খ, ঘণ্টা এবং ঢাক-ঢোলের বাজনার মধ্য দিয়ে মহাষষ্ঠীর বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় দুর্গোৎসব। আগের বছরগুলোতে করোনা মহামারির কারণে পুজোর আনন্দ অনেকটাই ফিকে হয়ে গিয়েছিল। তবে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা আশা করছেন, দূর্গোৎসবের পর জমজমাট হবে।

শনিবার (১ অক্টোবর) সকাল সোয়া ৮টায় ঢাকেশ্বরী মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠী কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মহাষষ্ঠী অনুষ্ঠান।

এ সময় অশুভ শক্তির বিনাশের জন্য ভক্তদের ঢোল, পিতল, শঙ্খের ধ্বনি ও মন্ত্রোচ্চারণের মাধ্যমে দেবী দুর্গাকে স্বাগত জানানো হয়। সন্ধ্যায় থাকবে দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাস। সকাল থেকেই ঢাকেশ্বরী মন্দিরে ভিড়। শিশু-কিশোরসহ সব বয়সী মানুষকে উৎসবের আনন্দে মেতে উঠতে দেখা গেছে। মন্দিরে প্রবেশের জন্য পুরুষ ও মহিলাদের জন্য আলাদা সারি রয়েছে। বর্ষপঞ্জি অনুসারে এবার দেবী গজ (হাত) ধারণ করে মর্ত্যে আসছেন। গজা বা হাতিতে দেবীর আগমন মানেই শুভ।

এটা বিশ্বাস করা হয় যে দেবী যদি গজ চড়ে মৃত্যুতে আসেন, তবে তিনি তার সাথে সুখ এবং সমৃদ্ধি নিয়ে আসেন। হাতি জ্ঞান এবং সমৃদ্ধির প্রতীক। আর ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে নৌকায় চড়ে পৃথিবী ছেড়ে চলে যাবেন দেবী। নৌকা মানেই নিজের ইচ্ছা পূরণ করা। ধরিত্রী হয়ে ওঠে শস্য সবুজ। তবে একই সঙ্গে ভারী বর্ষণ বা বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। পঞ্জিকা অনুসারে শনিবার মহাষষ্ঠীর সকালে ষষ্ঠী কল্পারম্ভ ও ষষ্ঠীবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় দেবীর বোধন, আবাহন ও অধিবাস হবে। রবিবার মহাসপ্তমী পূজা, সোমবার মহাষ্টমী, মঙ্গলবার মহানবমী ও বুধবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন ও প্রতিমা বিসর্জন হবে।

গত বছরের তুলনায় এ বছর মণ্ডপের সংখ্যা বেড়েছে। জমকালো আয়োজনে সনাতন ধর্মের ভক্তরা। পূজা উদযাপন পরিষদের হিসাব অনুযায়ী, এবার সারাদেশে ৩২ হাজার ১৬৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে। গতবারের চেয়ে এই সংখ্যা ৫০ বেশি। ঢাকা মহানগরীর ২৪১টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে যা গতবারের চেয়ে ৬টি বেশি। গতবার সারাদেশে ৩২ হাজার ১১৮টি পূজামণ্ডপ ছিল।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. চন্দ্রনাথ পোদ্দার বলেন, এবার আমরা আশাবাদী। সরকার আন্তরিক, প্রশাসনও আন্তরিক। আমাদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রয়েছে।