অবিশ্বাস্য কীর্তিতে হাজার রানের ক্লাবে এনামুল বিজয়

ছবি: সংগৃহীত
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

সিপ্লাস ডেস্ক: হাত ভেঙে বিশ্বমঞ্চ থেকে দেশে ফেরা; এরপর নিয়মিতভাবে কখনোই আর জাতীয় দলে ফেরা হয়নি। ঘরোয়া ক্রিকেটে ফর্ম হারিয়ে ক্লাব দলের একাদশ থেকে ছিটকে যান, এমনকি একাদশের মতো নেট সেশনেও মেলেনি সুযোগ। এরপর এনামুল হক বিজয়ের সেকি কান্না।

সেইসব কান্না-হতাশার দিন পেরিয়ে বিজয় হাসছেন বিজয়ীর বেশে।

বাঁহাতি পেসার নাহিদের অফস্ট্যাম্পের বাইরের ডেলিভারি পয়েন্টের দিকে খেলেই নিয়ে নিলেন এক রান, পৌঁছে গেলেন ৬৯ থেকে ৭০ রান। এই সিঙ্গেল নেওয়ার সময় মাঝ পিচে থাকতেই দুই হাত ছড়িয়ে শুরু করলেন উদযাপন। পপিং ক্রিজে পৌঁছে খুললেন হেলমেট, দেখালেন নিজের উচ্ছ্বাস। ফিরতে হলে এভাবেই ফিরতে হয়; বিজয়ের মতো ফিরতে হয়; বিজয়ী হয়ে ফিরতে হয়।

এমন আনন্দ-উদযাপনই যে মানায় এনামুল হক বিজয়ের। কেননা অবিশ্বাস্য এক কীর্তিই গড়েছেন তিনি। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটে প্রথম ব্যাটার হিসেবে ১ হাজার রানের ক্লাবে প্রবেশ করেছেন এ ডানহাতি ওপেনার। লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর আর কোনো ব্যাটার প্রিমিয়ার লিগে ১ হাজার রান করতে পারেননি।

মঙ্গলবার বিকেএসপির চার নম্বরে মাঠে রূপগঞ্জ টাইগার্স ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে ম্যাচে এই মাইলফলক স্পর্শ করেছেন বিজয়। চলতি আসরে নিজের নবম ফিফটি হাঁকিয়ে ৭০ রান করার সময় পূরণ হয়েছে বিজয়ের ১ হাজার রান। এখন তিনি অপরাজিত রয়েছেন ৭৩ রান করে।

আজকের ম্যাচ শুরুর আগে ১৩ ম্যাচে দুই সেঞ্চুরি ও আট ফিফটিতে ৯৩০ রান করেছিলেন বিজয়। উড়ন্ত ফর্ম ধরে রেখে আজও ফিফটি পেরিয়েছেন তিনি। রূপগঞ্জ টাইগার্সের দেওয়া ২৩০ রানের লক্ষ্যে উদ্বোধনী জুটিতে এরই মধ্যে ১৪৭ রান করে ফেলেছেন বিজয় ও তামিম ইকবাল (৬৪)।

এতোদিন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের এক আসরে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড ছিল সাইফ হাসানের দখলে। ২০১৮-১৯ মৌসুমে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে ১৬ ম্যাচে তিন সেঞ্চুরি ও চার ফিফটিতে ৮১৪ রান করেছিলেন ডানহাতি ওপেনার সাইফ হাসান।

একই বছর লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জের হয়ে তিন সেঞ্চুরি ও পাঁচ ফিফটিতে ৮০৭ রান করেন বাঁহাতি ওপেনার নাইম শেখ। ডিপিএলের লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা প্রাপ্তির পর এক আসরে ৮০০’র বেশি রানের রেকর্ড ছিল এ দুইটিই। এবার ৮০০ রান অতিক্রম করেছেন আরও দুজন।

এনামুল বিজয় ছাড়াও এবার ৮০০ রান করেছেন লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জের অভিজ্ঞ ব্যাটার নাইম ইসলাম। আজ গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের বিপক্ষে ৪২ রান করার পর চলতি লিগে ১৪ ম্যাচে নাইমের মোট সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ৮৩৬ রান। প্রিমিয়ার লিগে এ চার ব্যাটারই শুধু ৮০০’র বেশি রান করতে পেরেছেন।

উল্লেখ্য, লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার আগে সংরক্ষিত পরিসংখ্যানে জানা যায় প্রিমিয়ার লিগের ২০০১ সালের আসরে মোহামেডানের হয়ে ১৬ ম্যাচে ৯৪ গড়ে ১২২৭ রান করেছিলেন কেনিয়ার কিংবদন্তি ক্রিকেটার স্টিভ টিকোলো। এছাড়া গত শতকেও প্রিমিয়ার লিগে হাজার রানের নজির থাকার কথা শোনা যায়।