অতি ভারী বর্ষণ থামলেও থামেনি জলজট

ছবি: সিপ্লাসটিভি.নিউজ
CPLUSTV
CTG NEWS
CPLUSTV
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  চট্টগ্রামের প্রায় সবখানেই টানা বর্ষণে এখন থইথই করছে পানি। তবে বৃষ্টি থামলেও জলজট কমেনি এখনো।

রবিবার (১৯ জুন) ভারি বৃষ্টিতে নগরীর ২ নম্বর গেইট, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, চান্দগাঁও, আগ্রাবাদসহ বেশকিছু নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ভোর সাড়ে ছয়টার পর বৃষ্টি থেমে গেলেও এখনও নামেনি বৃষ্টির পানি। হাঁটু পানি জমেছে চান্দগাঁও থানায়ও।

গত দু’দিনের মত পানি উঠেছে আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালের পুরাতন ভবনের নিচতলা ও আশেপাশের এলাকায়। নিচতলার শিশু ওয়ার্ড, অভ্যর্থনা কক্ষ, বহির্বিভাগ ও প্রশাসনিক বিভাগে জলাবদ্ধতার কারণে ভোগান্তিতে পড়েন রোগী, স্বজন ও চিকিৎসকরা।

নগরবাসী বলছেন, এমন টানা জলাবদ্ধতা কমই দেখেছেন তারা। বলতে গেলে পাহাড়ি এলাকা ছাড়া সবখানেই এখন পানি আর পানি।

এদিকে, পানির কারণে চার দিন ধরে রান্নাবান্না বন্ধ আছে কাপাসগোলার নিচ তলার অনেক বাসিন্দার ঘরে। সেখানের এক বাসিন্দা সোহানা মোনাজ্জিল জানান, ‘সেই যে শুক্রবারে বাসায় পানি ঢুকেছে, আর যেন নামছেই না। দিনে বালতি ভরে পানি বাইরে ফেলি। কিন্তু পানি পরিষ্কার করতে না করতেই আবার ঢুকছে। রান্নাবান্না বন্ধ। খাটের ওপর বসে রাত কাটাচ্ছি সবাই। কি যে অবর্ণনীয় কষ্টে আছি বলে বোঝানো যাবে না।’

রবিবার সন্ধ্যা থেকে চান্দগাঁও থানার নিচ তলায় হাঁটু পানি জমে আছে। ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) কক্ষ থেকে হাজতখানা—সব কক্ষেই ঢুকে গেছে পানি। এ কারণে থানার স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সেখানে কর্মরত কয়েকজন পুলিশ সদস্য।

ঠিক সময়ে নালা-খাল পরিষ্কার না করায় জলাবদ্ধতা মারাত্মক আকার ধারণ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন নগরবাসী। ভাটার সময় পানি দ্রুত নালা-খাল হয়ে কর্ণফুলী-বঙ্গোপসাগরে চলে গেলে এমন দুর্যোগে পড়তে হতো না বলে মনে করেন তারা।